ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

একের পর এক ভিডিও আসিয়াছে, আরও আসিতেছে … এবার শিশু পরিবারে দুই শিশুকে পেটানোর ভিডিও। টিভি চ্যানেলগুলো আমাদের আগ্রহ দেখে প্রচার করছে এসব নির্যাতনের, হত্যাকান্ডের ভিডিও। মহাসমারোহে চ লি তে ছে? দে শে এ স ব কী হ ই তে ছে? কী চ লি তে ছে? শিশুদের টিভিতে বা অন্য কোনো মাধ্যমে নির‌্যাতনের নির্মমতার ভিডিও দেখার পরিণাম খুবই খারাপ। যেহেতু টিভিতে বিশেষ করে টিভি সংবাদে টানা নির‌্যাতনের নির্মমতার ভিডিও দেখানো হচ্ছে, তাই টিভি বন্ধ রাখুন যাতে শিশুরা নির্মমতার ভিডিও না দেখে।

টিভির স্ক্রলে যে ভাষায় ও ট্রিটমেন্টে সংবাদ প্রচার করা হয় তাও শিশুর মানসিক চাপ সৃষ্টি ও মস্তিস্কে ক্ষতিকর ভূমিকা রাখছে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল খুললাম, আমার শিশু-ছেলে একটি নির্মম নিউজ হেডলাইন দেখে প্রশ্ন করল, ব্যাখ্যা চাইল, আমি বেওকুপ বনে গেলাম। তার সাথে এত নির্মম নিষ্ঠুর হত্যা তাও আবার বাবা কর্তৃক, কীভাবে আলোচনা করি, অনেক কষ্টে নাছোড় শিশুর কৌতূহল থেকে সরে এলাম।

শিশুদের সহিংসতা যেভাবে মিডিয়ায় প্রচার করা হচ্ছে, তাতে তারা এক ধরনের ট্রমা নিয়ে বড় হচ্ছে। এ বছর Pediatrics জার্নালে প্রকাশিত লিন্ডসে বরার্টসন, হেলেনা ম্যাকআনালি এবং রবার্ট হ্যানকক্স-এর এক গবেষণা প্রবন্ধ বলছে, শিশুরা মিডিয়াতে সহিংসতা দেখলে তারা অসামাজিকভাবে বড় হতে থাকে! 

সমাজে সহিংসতার জন্য টেলিভিশনে/সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত সহিংসতাকে প্রত্যক্ষভাবে দায়ী করা হয়।সেই হাইফোথেসিস থেকে গবেষণা হয়েছে অনেক দেশে।চূড়ান্ত অর্থে প্রভাবকে অস্বীকার করতে পারেনি কোনো গবেষণা।১৯৫৭ সাল থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত ২১৭টি গবেষণার উপর একটি বিশ্লেষণ চালিয়ে মনোবিজ্ঞানী জর্জ কমস্টক এবং হেইজাংপেইক এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে মিডিয়ায় দেখা সহিংসতায় প্রভাবিত হয়ে অনেক মানুষই মাঝারি থেকে বড় ধরনের সহিংস বাস্তবতা উৎপাদন করে থাকে।

এছাড়া আমার নিজস্ব পর‌্যবেক্ষণও খুবই ভয়াবহ। ২০১৪ সালে আমি দেখেছি, অনেক শিশুর মধ্যে মানসিক চাপ তৈরি হয়েছে। তার পরিণতি হিসেবে তাদের মধ্যে নানা ধরনের বিকৃতি তৈরি হয়েছে।

সবচয়ে বড় ক্ষতিটা হচ্ছে শিশুর মধ্যে সহিংসতার কারণে তৈরি মানসিক চাপ তাদের মস্তিস্কের মারাত্মক ক্ষতি করে। তাদের স্মৃতি শক্তি ধ্বংস করে দেয়। তাদেরকে আগ্রাসী করে তোলে। তাদের কোমল মানসিকতা ও মানবিকতার গুণাবলিতে ধস সৃষ্টি করে বলে নিউরোসাইন্টিস্টগণ গবেষণায় পেয়েছেন। সুতরাং যেহেতু টিভিতে বিশেষ করে টিভি সংবাদে কারো নিয়ন্ত্রণ নেই, টানা নির‌্যাতনের নির্মমতার ভিডিও দেখানো হচ্ছে, তাই বাংলাদেশের টিভি বন্ধ রাখুন, যাতে শিশুরা নির্মমতার ভিডিও না দেখে।