ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

প্রধান দু’ দল ক্ষমতার নেশায় উম্মাদ। আর তাদের উন্মত্ততার করুণ শিকার এম ভি শরিয়তপুর-১ লঞ্চ এর প্রায় ২৫০ জন যাত্রীর সলিল সমাধি। মাইনাস-২ ফর্মুলাটাই এ দেশে সঠিক ছিল। লঞ্চ ডুবিতে ২৫০ জন সাধারণ মানুষ মারা গেলো। বিরোধী দলীয় নেত্রীর ঢাকা চলো কর্মসূচী এবং মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর তথাকথিত জন নিরাপত্তার অজুহাতে মানুষ তিন দিন আটকা পড়ে ঢাকা আসতে পারেনি। সোমবার রাত থেকে যানবাহন চলাচল শুরু করার ফলে সবাই তাদের জরুরী কাজে ঢাকা আসতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। আর এজন্যই মুলত এ দূর্ঘটনা। কে নিবে এর দায়ভার?

একই পরিবারের ৮-১২ জন লোক মারা যাবার ঘটনাও ঘটেছে। কত করুণ সেই স্বজন হারা কান্নার দৃশ্য। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী তো ১৫ আগষ্ট ১৯৭৫ সালে পরিবারের সবাইকে হারিয়েছিল। এম ভি শরিয়তপুর-১ লঞ্চ ডুবির কারনে যারা পরিবারের সবাইকে হারিয়েছে, কি দিয়ে সান্ত্বনা দিবেন তিনি তাদের? প্রধানমন্ত্রীত্ব দিয়ে দিবেন? মাত্র ৩০,০০০/- টাকা! মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে তার পরিবারের প্রতি সদস্য-এর জন্য ১,০০,০০০/- টাকা করে আমি দিতে রাজী আছি। বিনিময়ে আমি প্রধান মন্ত্রীর চেয়ারটি চাইব না। আমি শুধু চাইব- তিনি বা তার পরিবারের কেউ যেন ১৫ আগষ্ট ১৯৭৫ সালের কথা বলে মানুষের আবেগটি যেন কাজে না লাগায়।