ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

 

দিন দিন বেড়েই চলছে হিজড়াদের উত্পাত। এদের বেপরোয়া আচরণে মানুষ ভীত, আতঙ্কিত, অসহায়।

দিনের বেলা দোকানপাট, ফুটপাত, মার্কেট, বিভিন্ন বেবসায় প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি ও মানুষের বাসায় জোর করে ঢুকে তাদের ভয় ভীতি দেখিয়ে, বিভিন্ন কায়দায় জিম্মি করে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করা এখন তাদের কাছে ডাল ভাত খাওয়ার মতই নরমাল বেপার। এর সাথে তাদের আগের সব কীর্তি কলাপ যেমন রাতে নানা ধরনের অসামাজিক কর্মকাণ্ড, মাদক বেবসায় তো আছেই।

ইদানিং হিজড়াদের ক্ষমতা প্রদর্শনের স্টাইল আমাদের সামাজিক নিরাপত্তার উপর বিশাল ঝুকির সম্ভাবনাকে আরও সামনে এনেছে। কেউ তাদের দাবি কৃত টাকা দিতে অসম্মতি জানালে বা তাদের কাজে বাধা দিতে চেষ্টা করলে ট্রাক ভর্তি লোকজন নিয়ে হামলা করার ঘটনায় জনমনে আতংক আর বেড়েছে।

এইতো কিছুদিন আগের কথা। উত্তরা সাত নম্বর সেক্টরের একটি বাসায় হঠাত্‍ একদল হিজড়া ঢুকে চিত্‍কার চেচামেচি ও নানা ধরনের কুরুচিপূর্ণ কথা বার্তা বলে চারদিকে উত্তেজনা তৈরি করে বসর মানুষকে আতঙ্কিত করতে আরম্ভ করল। আর সঙ্গে চলল তাদের অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি। তাদের এই পূর্ব পরিকল্পিত ঘটনাটি ছিল ওই বাসা আলোকিত করে সবে মাত্র জন্ম নেয়া একটি ছোট্ট শিশু। তিনদিন আগে জন্ম নেয়া এই শিশুটিকে অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে ঘন্টা দুই আগে বাসায় আনা হয়েছে। তাদেরকে দশ হাজার টাকা দিতে হবে না হলে তারা বাচ্চাটিকে নিয়ে চলে যাবে। এবং হিজড়ারা জোর করে বাচ্চাটিকে কোলে তুলে নিয়ে যেতে উদ্যত হয়। তাদের হাতেপায়ে ধরে সাত হাজার টাকা দিয়ে কোনও মত বিদায় করলেও ঘটনাটি মনে হলে শিশুটির বাবার এখনো গা শিউরে উঠে।

এই ঘটনা টি এখন নিয়মিত। সরকার, পুলিশ, প্রশাসন সবাই সব জানে। কিন্তু এধরনের ঘটনা প্রতিরোধে কোনও পদক্ষেপ এখনো চোখে পড়েনি। আমরা জানিনা বেপরোয়া এই হিজড়াদের ক্ষমতা কোথায় গিয়ে শেষ হয়েছে .। হয়তো ওনারা জানেন….