ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

 

আগাম ঘোষণা দিয়েছিল তারা সব প্রশ্ন ফাঁস করবে। সরকারকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সে কাজ ফাঁসকারীরা সফলভাবে করে যাচ্ছে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, গোটা পরীক্ষা ব্যবস্থা সরকারের হাত থেকে বের হয়ে গেছে বলে মনে হচ্ছে। পাকিস্তান আমলে এক বিহারী হাবিলদার পরীক্ষার হলে ডিউটি করছিল। ছাত্ররা পরীক্ষার শুরু হলে শরীরের বিভিন্ন জায়গা থেকে নানা সাইজের কাগজের টুকরা (নকল) বের করতে লাগল। এসব দেখে বিরক্ত হয়ে বিহারী হাবিলদার বই এনে এক ছাত্রের সামনে রেখে বলল, ‘কিতাব দেখে লিখ,  লেকিন নকল মাত কর।’ সরকারের অবস্থা এখন এই হাবিলদারের মতই। প্রশ্নপত্র ফাঁসের লজ্জা থেকে বাঁচতে এখন ছাত্রদের পরীক্ষার হলে বই সরবরাহ করতে হবে মনে হয়। এছাড়া আর উপায় কি!

রাষ্ট্রের থেকে বড় শক্তি কি কিছু হতে পারে? না, পারে না। যদি কেউ রাষ্ট্রকে হুমকি দেয় যে তার সিস্টেমকে তছনছ করে দেবে, আর রাষ্ট্র যদি সেই শক্তিকে ধ্বংস  করতে না পারে তবে তা রাষ্ট্রের ব্যর্থতা নয় কি? কিছুদিন আগে জেএমবি সে চ্যালেঞ্জ করেছিল। সরকার তার সর্বশক্তি নিয়োগ করে তাদের দমন করেছে। বিডিআর বিদ্রোহে একই কাজ করেছে সরকার এবং এটাই যথাযথ। কিন্তু প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ করার ব্যাপারে মানুষ সরকারের অতটা আন্তরিকতা দেখতে পাচ্ছে না। সরকারতো এতদিন ধরে স্বীকারই করেনি যে প্রশ্ন ফাঁস হয়। কিন্তু আগুনকে কতদিন লুকিয়ে রাখা যায়?

এখন মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর মুখের দিকে তাকালে মায়া হয়। উদভ্রান্তের মত যে যা বলছে তাই করে যাচ্ছেন। প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ করতে কিছুক্ষণ ইন্টারনেট বন্ধ রাখার নির্দেশও দিলেন কার যেন পরামর্শে। আবার অন্য কারও কথায় সে নির্দেশ তুলেও নিলেন। ঠাণ্ডা মাথায় ভাবলে তিনি আগেই বুঝতে পারতেন, যে বা যারা এহেন অপকর্ম দিনের পর দিন করে যেতে পারে কোন বাধা ছাড়াই, তাদের জন্য সময় কোন ব্যাপারই না। আপনি পরীক্ষার ১ ঘন্টা আগে ইন্টারনেট বন্ধ করলেন, সে আর ১ ঘণ্টা এগিয়ে যাবে। সে আপনার থেকে এগিয়ে আছে এটা আপনাকে সবার আগে বুঝতে হবে।

সমস্যা থাকলে সমাধান আছে। সবার আগে সমস্যাকে স্বীকার করতে হবে। এখানেই মাননীয় মন্ত্রী দেরি করে ফেলেছেন। যাক, better late than never. এবার আন্তরিকভাবে চেষ্টা করুণ। এই সর্বনাশা প্রশ্ন ফাঁসের খেলা বন্ধ হবেই।

ছবির ছেলেটাকে দেখুন মাননীয় মন্ত্রী। কি আন্তরিক চেষ্টা তার! পরীক্ষা নামক যুদ্ধে তাকে জয়ী হতেই হবে! আমরা আপনার কাছ থেকে এমন আন্তরিকতা আশা করি পাবলিক পরীক্ষাগুলো অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে।