ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

বন্ধু,
আমার লিখার চেয়ে পড়তেই বেশি ভাল লাগে।এমনিতেই অফিসে অনেক কাজ থাকে সময় পাই না , আবার আমার বাসায় ও কোন পিসি নাই তাই নিয়মিত লেখা হয়ে উঠেনা, তাছাড়াও আমি ভালোমত গুছিয়ে লিখতেও পারি না। তোরা কত সুন্দর গুছিয়ে গুছিয়ে লিখতে পারিস, দেখিস আজকে তোরা যারা ভাল লেখিস, তোদের মধ্যে থেকেই একসময় বাঘা বাঘা কলামিস্টরা বের হবে। আমাদের বাপ-দাদারা অস্ত্র ধরেছিল দেশ রক্ষার জন্য আজ তোদের কলম (?) ধরতে হবে স্বাধীনতা রক্ষার জণ্য। আমি ব্যাক্তিগতভাবে মনে করি প্রত্যেকের উচিত যার যার স্থান থেকে আমাদের এই হতভাগা দেশটার জন্য কিছু করা। এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা গুলিই আমাদের দেশকে অনেক উচ্চে নিয়ে যাবে। যেমন আমি আমার প্রযুক্তির জ্ঞান দিয়ে চেষ্টা করছি কিছু একটা করার জন্য যা হয়তোবা আমাদের দেশের লাখ লাখ ডলার বাঁচিয়ে দিবে আবার তুই যেমন ছাত্রদের পরাচ্ছিস, আমার মত গাধাদের কে মানুষ বানাচ্ছিস। তোর প্রচেষ্টা থাকবে ছাত্রদের মধ্যে দেশ প্রেমের (অণ্য কোন প্রেম নয়) বাতিটা জ্বালানোর। একবার শুধু জ্বালিয়ে দে, দেখবি তারা তারা দেশকে কোথায় নিয়ে যায়। আমরা বাংলাদেশিরা অনেক আবেগপ্রবণ একবার যদি আবেগকে জাগিয়ে দিতে পারিস তাহলে দেখবি জান দিয়ে দিবে। এই আবেগ, ভালবাসারই প্রকাশ ঘটেছিল ৫২…..৬৯…৭১….এ । তুই একজন শিক্ষক, মানষ গড়ার কারিগর তাই তোর কাছে আমার প্রত্যাশাও বেশি। তোরাই তো জাতির বিবেক, তোদের পদচারণা এমন একটা স্থানে যেখানে ঞ্জানের চর্চা নয় বরং ঞ্জানের সৃষ্টি হয়। তাই জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে তোদের পাণে তাকিয়ে রয়েছে ৩০ লক্ষ আত্মা যারা প্রাণ দিয়েছে দেশের জন্য। তাদের সোনার বাংলার জন্য তোকেও কিছু করতে হবে।

কি বন্ধু পারবি না ? তোকে যে পারতেই হবে…. ভাল থাকিস….

[ মুলত এটা একটা চিঠি যা আমার এক বন্ধুকে লিখেছিলাম আজকেই। আমার বন্ধুটি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং এই ব্লগেরই একজন সফল ব্লগার। চিটিটা লিখার পর কেন জানি মনে হল আপনাদের সাথে শেয়ার করি । আমার প্রিয় বন্ধু সহ সবাই কে বলছি আসুন, জেগে উঠি আরেক বার এবং অভাগা দেশটার জন্য কিছু কর। আসা করি সবাই ভাল থাকবেন……..]