ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ আজ তাদের ২য় রায় প্রকাশ করল। প্রথম রায় নিয়ে তেমন কোন প্রতিক্রিয়া না থাকলে ও এই রায় নিয়ে দেশের প্রায় সকল মানুষ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে। কেউ আনন্দিত কেউ বা লজ্জিত আবার কেউ কেউ রাগে ফেঁটে পড়ছে। আর আমার মনে হচ্ছে, এই রায়ের মাধ্যমে দেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল তাদের রাজনৈতিক প্রজ্ঞার পরিচয় দিল। আমার প্রথম থেকেই মনে হত আওয়ামী সরকার রাজনৈতিক কারনেই এই ট্রাইব্যুনাল চালাচ্ছে, এখানে দেশ প্রেম বা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার কোন অভিপ্রায় নাই। হয়তবা এই ট্রাইবুনাল পরের রায়গুলিও এভাবেই দিবে। এতে আওয়ামী লীগের দুইটা লাভ আর বিএনপি পড়বে ম্যাইনকা চিপাই।

আওয়ামী লীগ হয়তবা ধরে নিয়েছে তারা পরের নির্বাচনে হেরে যাবে তাই তারা চাচ্ছে কোন মতে টাল বাহানা করে সামনের এক বছর কাটিয়ে দিতে। একটা রায় দিয়ে (যাবজ্জীবন) আসামীদের বাঁচিয়ে রেখে পরের সরকার অথাৎ বিএনপির হাতে ছেড়ে দেওয়া। বিএনপি সরকার নিজেদের অক্ষমতার কারনে তাদের রায় বাস্তবায়ন করতে পারবে না বরং জামাতী চাপে নতুন করে বিচার শুরু করবে এবং স্বাভাবিক ভাবেই জামাত নেতারা বেকসুর খালাস হয়ে যাবে। এর পর আওয়ামী লীগ হাম্বা হাম্বা শুরু করবে এবং বিএনপির গায়ে কলঙ্কের দাগ লেগে যাবে যার কারনে পরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনের বৈতরণী পাড় হওয়ার জন্য আর কোন ইস্যুর দরকার হবে না।

জামাত একটা সোনার ডিম পাড়া হাঁস। আওয়ামী লীগ বা বিএনপি কেউ তা হাত ছাড়া করতে চায় না। একটা মাত্র স্থায়ী ইস্যু যা দিয়ে ক্ষমতার বৈতরণী পার হওয়া যায় খুব সহজে। এই আম জনতার কথা বা নাই বল্লাম, এদের স্বাধীনতার চেতনা বা ধর্মীয় চেতনা নবডঙ্কা, কোন দাম…ই নাই কোন দলের কাছে।

আসুন আমরা জঙ্গলে যাই, সভ্য সমাজে আমাদের আর প্রয়োজন নাই।

ধন্যবাদ
পথহারা সৈকত
গাজিপুর বাংলাদেশ।