ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

ঢাকায় থেকেও যারা শাহবাগে যাওয়ার প্রয়োজন বোধ করেনি, তারা কোনোদিনও জানবে না কি আশ্চর্য ফুল ফুটেছে সেখানে। কি অভাবনীয় সৌরভে সেখানে হৃদয় প্রস্ফুটিত হয়েছে।

এ রকম একটা কথা শুনেছি, জগত্টা আসলে তাই, যেভাবে আপনি একে দেখতে চান।

মুক্তিযুদ্ধে ছিলাম না বলে প্রায়ই একটা দু:খবোধ কাজ করে। তাই চেষ্টা করি নিজের অবস্থানে থেকেই যতটুকু পারি আমার প্রিয় দেশ মা-য়ের জন্য ভাবতে (কাজে-কর্তব্যে আর কি-ইবা করার সামর্থ্য আছে!)

কিন্তু এভাবে কি আর মনের সাধ মেটে? মুক্তিযুদ্ধ তো মুক্তিযুদ্ধ! কোনো কিছু কি তার সাথে তুলনীয়?
এসব দোলাচলে জীবনে অনেকবার সূর্য উঠেছে, ডুবে গেছে ততোধিক দ্রুত গতিতে।

এমন সময় হঠাত্ শাহবাগের এই মনোলোভা প্রলোভন। মা-কে এবার রাজাকারমুক্ত করতে হবে।

কে এতে সমর্থন দিল, কে দিল না, সেটা অবশ্যই দেখার মতো বিষয়, ভাবার এবং মনে রাখার বিষয়। তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, আমার দরকার রাজাকার মুক্ত দেশ। আলীগ না বিম্পি কোনো কিছু জানার নাই, দাবি একটাই, রাজাকারের ফাঁসি চাই।

শাহবাগে ফোটা এই ফুল যদি পোকায় কাটে/ যদি দেশের তরে আমার ভালবাসা হার মানে ভোটের কাছে/ যদি এই ফুল নতুন ফুলের জন্ম দিতে গিয়ে ব্যর্থ হয়/ কিছু স্বার্থাণ্বেষীর কাছে/ তাহলে জেনে রাখো/ শাহবাগে বিনিদ্র অনেক রাত জেগে জেগে জেনেছি, আমরা… তরুণরা… শাহবাগ… ঘুমায় না… জেগে থাকে… ভোর বেলায়… দেশের তরে গান গায়… আর বজ্র কণ্ঠে আওয়াজ তোলে রাজাকারের ফাঁসি চাই!!
আমরা ঘুমাই না… আমরা জেগে আছি… এই অমানিশা ঘোচাব আমরাই!!