ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

আমার ছোট বেলার বেশিরভাগ সময় কেটেছে নদীর পাড়ে পাড়ে। আমার প্রিয় নদীটির পাড়ে। গতকাল ১১ই এপ্রিল বুধবার, আমি সে নদী থেকে বহু দূরের এই ঢাকা শহরে। বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে আমার নদীপাড়ের অনেক মানুষ আমাকে ফোন করলেন। ওরা সবাই আতঙ্কিত। সবার প্রশ্ন, ‘কি হচ্ছে? কি হবে? আবার নাকি ভূমিকম্প হবে? সুনামি আসছে নাকি….কি হবে বলতো?’ (এত ভয়ের মাঝেও আমার প্রিয় মানুষগুলোর কণ্ঠে আমার জন্য স্নেহের কমতি ছিল না। )

প্রশাসন থেকে উপকূলীয় এলাকায় মাইকিং করে জানিয়েছিল কিছু সতর্কবাণী। সুনামি বিষয়ক। আমার ধারণা ওই সাধারণ মানুষগুলো সে সতর্কবাণী পুরোপুরি বুঝে উঠতে পারে নি। আমার লেখার বিষয় ঠিক তা নয়। তবে এর সঙ্গে সরাসরি সম্পর্ক আছে।

গতকালের সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহার করেছে প্যাসিফিক সুনামি ওয়ার্নিং সেন্টার। এর পরের বার তা নাও হতে পারে। আমার উপকূলবাসী জানে না সুনামি সতর্কতা জারি করলে কি করতে হবে।

প্রশাসন থেকে শুধু সাবধান থাকতে বলা হয়েছে। তারা বলে নি, কি করলে সাবধানতা অবলম্বন করা হবে।

মানুষগুলো জানে না কিভাবে সাবধান থাকা যেতে পারে। কারণ উপকূলের মানুষ সুনামির সঙ্গে পরিচিত নয়। আমিও জানি না কি করতে হবে।

অথচ ওদেরকে জানাতে হবে। বন্যা ঘূর্ণিঝড় জ্বলোচ্ছাসের পর এবার সুনামির সঙ্গে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকার জন্য জানতেই হবে।
আমি নিজে জানি না বলে আপনাদের কাছেই জানতে চাইছি, কোনো এলাকায় সুনামি সতর্কতা জারি হলে, সেখানকার মানুষজন কি করবে?
কেউ না কেউ তো জানেনই এর উত্তর। প্লিজ আপনার জানা পথগুলো আমাকেও জানার সুযোগ দিন। আমি সেটা (স্নো-বল পদ্ধতিতে) উপকূলে আমার প্রিয় মানুষদের জানানোর ব্যবস্থা করতে চাই।