ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

আমার যতদূর ধারণা কাদের মোল্লার ফাঁসিই হবে । তবে ফাঁসির জন্য আন্দোলন অব্যাহত রাখতে হবে । কৌশলগত কারণে মোল্লাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়নি । রাষ্ট্র পক্ষ যেই আপিল করতে যাচ্ছে সেই আপিলের পরে মোল্লাকে মৃত্যুদণ্ডই দেওয়া হবে । যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের পক্ষ থেকে চাপ ছিল যাতে যুদ্ধাপরাধীদেরকে মৃত্যুদণ্ড না দেওয়া হয় । তাছাড়া দেশের ভেতরেও বড় ধরণের সংঘাতের আশঙ্কা ছিল, এই জন্যই হয়তো মোল্লাকে প্রথমেই মৃত্যু দণ্ড দেওয়া হয়নি । মৃত্যদণ্ডের জন্য বিপুল জনমতের প্রয়োজন ছিল যেই জনমত জনতা ও ব্লগারদের আন্দোলনের মাধ্যমে সামনে এসেছে ।

আইন-আদালত জনগনের সৃষ্টি তাই আইন-আদালত জনতার উর্ধ্বে নয় । আইন-আদালত অবশ্যই কোনও ব্যাক্তি বিশেষ বা কোনও দল বিশেষের উর্ধ্বে । জনমতকে উপেক্ষা করার সুযোগ আদালত বা সরকারের নেই, তাই জনমতের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ট্রাইব্যুনালের কাদের মোল্লাকে মৃত্যুদণ্ড দিতেই হবে । এই যুদ্ধাপরাধীরা বাংলাদেশের নাগরিকদেরকে হত্যা করেছে তাই যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদির ইচ্ছায় যুদ্ধাপরাধীদের শুনানি হতে পারে না । জনতা ও ব্লগার বন্ধুরা আপনারা রাজপথে আন্দোলন অব্যাহত রাখুন । আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের হাত মজবুত করুন । এতে করে আমাদের চাওয়া অবশ্যই সফল হবে ।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতার প্রশ্ন বার বার উঠছিল । কাদের মোল্লার ফাঁসির আদেশ না হওয়ায় সেই প্রশ্ন অনেকটা চাপা পড়ে গেছে । এই রায়ের মাধ্যমে সরকারও খুশী না । এই রকম একটি পরিস্থিতির প্রয়োজন ছিল । এটা আমাদের একটি সাফল্য । সব রায়ে আওয়ামী লীগ খুশী হলে বড় ধরণের সমস্যার সৃষ্টি হবে । জানেন তো আমাদের দেশের রাজনীতি বড়ই জঘন্য । এখানে সব কিছু নিয়েই রাজনীতি হয় । তবে মনে রাখবেন, কাদের মোল্লা ফাঁসি থেকে বাঁচতে পারবে না । আমি ১০০% নিশ্চিত মোল্লার মৃত্যু দণ্ডই হবে । দেশে মানুষের আকাঙ্খা অবশ্যই পূর্ণ হবে । আমার দেশের মানুষের বিরুদ্ধে যাওয়ার ক্ষমতা ট্রাইব্যুনালের নেই । তবে আন্দোলন থামাবেন না । দেশ ও বিদেশে এই আন্দোলনের খবর ছড়িয়ে যাওয়া অত্যন্ত জরুরি ।

বাংলাদেশি জনগনের জয় হোক, বাংলাদেশ অমর হোক ।