ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

আমরা কি নিরাপদ ? আমাদের কি এ্যাটম বোমা বানানো উচিৎ? এই বিষয়ে ব্লগার ও পাঠকদের মতামত চাই । আমাদের প্রতিবেশি দেশের কাছে এ্যাটম বোম্ব আছে যেই দেশ দ্বারা আমরা তিন দিক দিয়ে ঘেরা । এমতাবস্থায় আমরা কী ভাবে নিরাপদ থাকতে পারি ? ভারত নতুন সম্রাজ্যের পরিকল্পনা করছে, দেশটির নেতারা ইন্দোনেশিয়া থেকে আফগানিস্তান পর্যন্ত ভারত সম্রাজ্য বিস্তারের কথা ভাবছে । আর এদিকে দুঃখজনক হলেও সত্যি যে আমাদের দেশের প্রধান দু’টি দল কী ভাবে একে অপরকে শেষ করে দেওয়া যায় সেই চিন্তায় ব্যস্ত । ভারতের প্রাক্তন প্রধান মন্ত্রী ক্ষমতায় থাকা কালিন সময় বলেছিলেন, ”দেশ ভেঙে ছোট করার দিন শেষ হয়ে গেছে এখন দেশ কে বড় করার যুগ চলছে” । ভারতের দাবি ভারত সম্রাজ্য নাকি একসময় ইন্দোনেশিয়া থেক আফগানিস্তান পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল । অতএব, তাঁরা তাঁদের সাম্রাজ্য পূনর্বিস্তার করতে চান । ভারতের প্রাক্তন মন্ত্রি মুলায়েম সিং য়াদব ওই সময় দক্ষিন এশিয়ার দেশগুলোকে নিয়ে কনফেডারেশন বানানোর জোরালো ইচ্ছা ব্যক্ত করেছিলেন, যা এই অঞ্চলের ছোট দেশ গুলি কে ভারতের অন্তর্ভুক্ত করার একটা চক্রান্ত । বিশেষ করে বিজেপি বাংলাদেশকে মোটেও ভালো চোখে দেখে না । আর সব সময় কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকবে না । তাঁদের সহ্য করতে কষ্ট হয় ভারতের মাঝখানে স্বাধীন বাংলাদেশকে । সীমান্তে ভারত বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যেই ধরনের আচরণ করেছে তা শত্রুতাপূর্ণ।
গত বার যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল তখন সীমান্তে বিডিআর ও বিএসএফ-এর ম ধ্যে বড় রকমের সংঘর্ষ বেধে ছিল যার পরিনতে ভারতের ১৮ জন বিএসএফ সদস্য মারা যায় । ওই ব্যাপারটি নিয়ে ভারতের মিডিয়া গুলো বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অতি র ঞ্জিত করে অনেক প্রচারনা চালায় । জী টিভির এক টক শো তে কট্টর পন্থী দল শিব সেনার এক নেতা বলেন ” বাংলাদেশ কে ভারত এক ঘন্টার মধ্যে শেষ করে দিতে পারে সেই বাংলাদেশ আবার ভারতের বিএসএফ হত্যা করার সাহস কী করে পায়” ?
ভারতের কাছে এ্যাটম বোমা আছে বলে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এই ভাবে চিন্তা করে । ক্ষমতার ভার সাম্য না থাকার ফলে ভারতের অনেক অন্যায় কর্ম-কান্ড কে বাংলাদেশের সহ্য করতে হচ্ছে । বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের বিভিন্ন পয়েন্ট ভারত জোর করে দখল করে রেখেছে । ভারত মনে করে তাদের দয়ায় বাংলাদেশ টিকে আছে । যার শক্তি নেই তাকে কেউ সম্মান করে না । অতএব, দেশে স্বাধীনতা ও স্বার্থ রক্ষার্থে শক্তির কোনো বিকল্প নেই । জনসংখ্যার দিক থেকে পাকিস্তান বাংলাদেশের সমান, কিন্তু পাকিস্তানের কাছে পারমানবিক বোমা আছে বলে অপেক্ষাকৃত বড় দেশ হওয়া সত্বেও ভারত পাকিস্তান কে ভয় পায় । এত ছোট হওয়া সত্বেও পাকিস্তান ভারত কে দাঁত ভাঙা জবাব দেয় । সম্মানের সাথে টিকে থাকতে বাংলাদেশর অবশ্যই এ্যাটম বোমা বানানো উচিৎ । যুদ্ধ করে স্বাধীনতা অর্জন করেছি বিদেশীর সামনে নত হয়ে থাকার জন্য নয় । আমাদের সার্বভৌমত্ব আমাদের শক্তি দ্বারা সুরক্ষিত থাকবে কোনো বিদেশীর করুনায় নয় ।
আমরা যখন শক্তিশালী হয়ে কোনো দেশের সাথে আলোচনা করতে বসবো তখন ওই দেশ আমাদের সিদ্ধান্তের সম্মান করবে ।
মনে রাখবেন পারমানবিক অস্ত্র শুধু দেখানোর জন্য ব্যবহার করার জন্য নয় । যখন ভারত বুঝতে পারবে বাংলাদেশ ও দিল্লী, মুমবাই, চেন্নাই উড়িয়ে দিতে সক্ষম তখন দেশটি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যে কোনো পদক্ষেপ চিন্তা-ভাবনা করে নেবে ।
প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসীনা প্রায় বলে থাকেন, ”বাঙালী পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে চলবে” । আমি জন নেত্রী শেখ হাসীনার এই ভাবনার প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধাপোষন করি । আমি প্রধান মন্ত্রীর কাছে আনুরোধ করছি, আপনাদের নেত্রীত্বে এই দেশ স্বাধীন হয়েছে এখন সেই স্বাধীনতা কে অক্ষুন্ন রাখতে সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করুন । দেশ কে এত বেশি শক্তিশালী করুন যাতে কোনো বিদেশী বাংলাদেশের দিকে বাকা চোখে দেখার সাহস না পায় ।