ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

আমরা জানি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে যেই যুদ্ধাপরাধ হয়ে ছিল তার মূল চালিকা শক্তি ছিল পাকিস্তান সরকার । তখনকার যুদ্ধাপরাধ পাকিস্তানি জান্তার ষড়যন্ত্রের ফসল । এবং যাদের দিয়ে যুদ্ধাপরাধ করানো হয় তাদের প্রধান অংশ ছিল বর্তমান পাকিস্তানের ততকালীন সেনা সদস্যরা এবং দ্বিতীয় অংশ ছিল বাঙালি যুদ্ধাপরাধীরা যাদের বিচার ইতিমধ্যে আরম্ভ হয়ে গেছে । যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আরম্ভ হওয়াটা নিঃসন্দেহে একটি ইতিবাচক দিক । দেরিতে হলেও জাতির আকাঙ্খা পূরণ হতে যাচ্ছে । তবে যুদ্ধাপরাধীদের প্রধান অংশ যদি বিচারের আওতায় না আসে তাহলে এই বিচার পুরোপুরি পূর্নতা পাবে না । যে করেই হোক পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদেরকেও এই বিচারের আওতায় আনতে হবে । বাংলাদেশ সরকারকে এই উদ্যোগ নিতে হবে । এই ব্যাপারে পাকিস্তান সরকারের সাথে আলাপ করে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদেরকে এই দেশে নিয়ে আসতে হবে । যেই পাকিস্তানিরা যুদ্ধাপরাধ করেছিল তাদের একটা লিস্ট তৈরি করে পাকিস্তানকে দিয়ে উল্লেখ্য যুদ্ধাপরাধীদের বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করার দাবী জানাতে হবে । যদি পাকিস্তান সরকার যুধাপরাধীদের দিতে রাজি না হয় তাহলে জাতিসংঘ বা আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনালের মাধ্যমে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদেরকে ধরে আনতে হবে ।