ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

অনেক ভেবে চিন্তে দেখলাম দেশ ডিজিটাল হচ্ছে আর পাশাপাশি ডিজিটাল পুলিশ বাহিনীও তাদের কারিশমা দেখাচ্ছে।

পুলিশ হতে হলে শিক্ষক পিটাইতে জানতে হবে,সাংবাদিক পিটাইতে জানতে হবে,জানতে হবে দিনে দুপুরে আদালত প্রাঙ্গনে কিভাবে একটা অসহায় মেয়ের শ্লীলতাহানি করতে হয়।
পুলিশ নিয়ে আমার নিজেরই খুব বাজে একটা অভিজ্ঞতা আছে । তাই পুলিশ দেখলেই এখন চোদ্দ হাত দূরে থাকি । মনে মনে এটা ভেবে সান্ত্বনা পাই ভাগ্যিস আমার আত্মীয় স্বজন কেউই পুলিশ না । খোদার কাছে অসীম কৃতজ্ঞতা যে আমার বাবা পুলিশ না ।

৩ মাস আগের ঘটনা । সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়ে হল এ ফিরছিলাম । কখন যে রাত ১১ টা বেজে গেছে খেয়াল করিনি । রাস্তা দিয়ে হাঁটছি । হঠাত্‍ একটা পুলিশ এর গাড়ি এসে থামল আমার পাশে । গাড়ি থেকে দুজন পুলিশ নামল । আমাকে বলল এত রাতে কোথা থেকে ফিরছিস ? আমি সব বললাম । সব বলার পর একটা পুলিশ আমাকে বলল, গাড়িতে উঠ্, আমরা জানি তুই নেশা করছোস ,চল তোরে থানায় নিয়া দাবরানী দিমু..। আমি বললাম, ভাই এসব কী বলেন ? সারাজীবনে আমি একটা সিগারেট ও খাইনাই আর আপনারা এসব কী বলছেন ?

এর মধ্যে একটা চামচা পুলিশ আমাকে বলল, ভাই চা পানি খাওয়ার জন্যে কিছু দেন , ছাইড়া দিমু…। আমি রাগে তখন কাঁপছি..। পকেট থেকে সেল ফোনটা বের করে আমি পড়াই যে ছাত্রের বাসায় সেই ছাত্রের বাবা কে ফোন দিলাম আর সব খুলে বললাম…

আমার ছাত্রের বাবা নামকরা নেতা…সবাই একনামে চেনে । ফোন টা পুলিশ এর হাতে দিলাম…পুলিশ বেটা এক মিনিট কথা বলার পর হেসে আমাকে বলল,স্যার, আমাদের ভুল হইয়া গেছে …চলেন আপনারে হলে দিয়ে আসি…চা খাবেন??

আমি তখন একটু হাসলাম আর বললাম…সেটার আর দরকার নাই । এমনিতেই যা সমাদর করতে চাইছিলেন তাতেই মন পেট সব ভরে গেছে।