ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

প্রথম বীর্জের নমুনা উদ্ধার

সবচেয়ে বড় সমস্যা হল, ক্যালেনিক পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়ও একই ধরনের হত্যাকাণ্ড চলতে থাকল। এদের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হল  সেগ্রেই মার্কভ নামের ১৪ বছরের বালকের লাশ উদ্ধার। মার্কভ ছিল এ সিরিজের ১০ম ভিকটিম। মার্কভ পূর্বের বছরের ২৭ ডিসেম্বর নিখোঁজ হয়েছিল। মিখাইল ফেটিসভের নেতৃত্বে গোয়েন্দারা মার্কভের শরীরে প্রায় ৭০ টি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন খুঁজে পায়। তার লিঙ্গ কর্তনসহ যৌন এলাকার প্রায় সব কিছুই সরিয়ে ফেলা হয়েছিল। সবচেয়ে লক্ষণীয় বিষয় ছিল, মার্কভের পায়খানার রাস্তা দিয়ে যৌন ক্রিয়ার চিহ্ন। এই প্রথম তদন্তকারীগণ কোন ভিকটিমের শরীর থেকে খুনির বীর্জের নমুনা সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়।

Sergey_Markov

মার্কভের হত্যাকারী হিসেবে মিখাইল তাইয়াপিন ও আলেকজান্ডার পোনোমারেয়েভ নামের দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ ও নির্যাতনের মুখে তারা মার্কভ হত্যাসহ অত্র এলাকার বেশ কিছু অনুদ্ঘাটিত হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে। ইতোমধ্যে মার্কভের শরীর থেকে প্রাপ্ত বীর্জের ডাক্তারী পরীক্ষার প্রতিবেদন পুলিশের হাতে আসে। এতে দেখা যায় এ বীর্জের ব্লাড এন্টিজেন্ট হল  এবি(+)। বীর্জের রক্তের গ্রুপের সাথে না মেলায় ইতোপূর্বে সন্দেহকৃত ও স্বীকারোক্তি দেয়া সকল ব্যক্তিকে এই ধারাবাহিক খুনের দায় থেকে অব্যহতি দেয়া হলেও স্বীকারোক্তি করা মিখাইল তাইয়েপিনের রক্তের গ্রুপের সাথে মার্কভের মলদ্বারে পাওয়া বীর্জের গ্রুপের সাথে মিলে গেল। তাই আপাতত ধরে নেয়া হল, তাইয়েপিনই মার্কভের হত্যাকারী ও সিরিজ খুনের ঘটনার পরিসমাপ্তি ঘটল।

আরো লাশ আরো আলামত

কিন্তু তারপরও ঘটনা ঘটতেই থাকল। তাইয়েপিনের পুলিশ হেফাজতে থাকা অবস্থায় প্রথম যে হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হল সেটা ছিল একজন মহিলা। যদিও এ ভিকটিমের শরীরে বরাবরের মতো অসংখ্যা ছুরিকাঘাতের চিহ্ন ছিল তবুও তার চোখের এলাকা ছিল অক্ষত। এর সাথে একটি নতুন  বিশেষ শনাক্তকারী বিষয় (signature aspect) যুক্ত হল। এবার হত্যাকারী ভিকটিমের একটি হাতের আঙ্গুল কেটে নিয়ে গেল। এছাড়া পুলিশ ভিমটিমের শরীর থেকে অপরাধীর বীর্জের দাগ ও রক্ত সংগ্রহ করে। এর বাইরে ঘটনাস্থলে একটি ১৩-সাইজের জুতার দাগ পাওয়া যায়। জুতার দাগে বোঝা যায়, অপরাধী এক বিশাল দেহের আদম।

দুই খুনে একই ব্যক্তির বীর্জের নমুনা

ইতোমধ্যে আরও একজন সন্দেহভাজন দোষ স্বীকার করে পুলিশের কাছে জবানবন্দী দেয়। কিন্তু ইতোমধ্যেই পুলিশ বুঝতে পারে, এসব জবানবন্দীর তেমন কোন উপযোগিতা নেই। খুনি আসলে এখনও ধরা ছোঁয়ার বাইরে।  বুরোকভ আসলে একজন বিশেষ ব্যক্তিত্বের অধিকারী সন্দেহভাজনকে খুঁজছিলেন। কিন্তু ইতোপূর্বে গ্রেফতারকৃত কোন সন্দেহভাজনই তার কল্পিত ব্যক্তিত্বের সাথে মিল ছিল না। বিষয়টি সে টাকস্কফোর্স প্রধানসহ ঊর্ধ্বতনদের জানিয়ে অনেকটাই বিরাগভাজন হলেন। এর মধ্যে  মস্কো থেকে একজন অধিকতর দক্ষ ফরেনসিক বিশেষজ্ঞকে নিয়ে আসা হল। তিনি গোয়েন্দাদের সন্দেহভাজনদের গোটা তালিকাকেই বাতিল করে দিয়ে মতামত দিলেন যে, ইতোপূর্বে যে দুই ভিকটিমদের শরীর থেকে বীর্জের নমুনা পাওয়া গেছে তা একই ব্যক্তির এবং এর ব্লাড এন্টিজেন্ট হল এবি(+)।

এরপর ১০ বছর বয়সী বালক ডিমিত্রি তাসকিনিকভের  বিকৃত মৃতদেহ পাওয়া গেল। তার লিঙ্গ ও জিহব্বার শীর্ষভাগ  কর্তন করা হয়েছিল। তার শরীরেও বীর্জের নমুনা পাওয়া গেল যা পূর্বের দুই ভিকটিমের শরীরে পাওয়া বীর্জের  ব্লাড এন্টিজেন্টের অনুরূপ তথা এবি(+) ছিল। একই সাথে শরীরের পাশে একটি সুবৃহৎ পদচ্ছাপ পাওয়া গেল। প্রতক্ষদর্শীরা জানান ইতোপূর্বে তাসকিনিকভকে একজন দীর্ঘদেহী সমুন্নত হাঁটুঅলা ও বড় বড় পায়ের অধিকারী এবং মুখ গহব্বরের ভিতর দিকে চাপানো গালওয়ালা লোকের সাথে দেখা গিয়েছিল।

লাশের সংখ্যা ২৪ হল

১৯৮৪ সালের গ্রীষ্ম কালে কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত হল যে, এখন পর্যন্ত নিহত হওয়া ২৪ জন নারী ও শিশুকে হত্যাকারী একই ব্যক্তি। কোন ভিকটিমের শরীরে বীর্জের চিহ্ন পাওয়া গেলেই তা এবি(+) এন্টিজেন্ট বলে শনাক্ত করা যাচ্ছিল। আর হত্যাকারী এতটাই বেপরোয়া হয়ে উঠেছিল যে প্রতি পাক্ষিকেই সে একজন কলে বালক বালিকাকে খুন করছিল। অথচ কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত কিছু সন্দিগ্ধকে গ্রেফতার, ভুল কিছু স্বীকারোক্তি আদায় এবং পরবর্তী তদন্তে সেই সব স্বীকারোক্তিকে অসার প্রমাণ করা ছাড়া তেমন কিছুই করতে পারেনি।

টাস্কফোর্সের সদস্য ২০০ তে উন্নীত

সোভিয়েত অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী এ সময় টাস্কফোর্সের জন্য  আরো  এক ডজন গোয়েন্দাসহ প্রায় ২০০ লোকবলের অনুমোদন দিল। বুরোকভকে এবার টাস্কফোর্সের প্রধান করা হয়। সিদ্ধান্ত হয় যে বাসস্টান্ড, রেল স্টেশন এবং পার্ক ও বিনোদন স্থানগুলোতে সাদা পোশাকে গোয়েন্দাদের নিয়োগ করা হবে। এরা এসব স্থানে নজরদারীর মাধ্যমে সন্দেহভাজনদের জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রয়োজনে গ্রেফতার করবে।

টাস্কফোর্স যাদের খুঁছিল

বুরোকভের গোয়েন্দারা ২৫-৩০ বছর বয়সী লম্বা ও সুঠাম দেহের অধিকারী এক অপরাধীকে খুঁজতে শুরু করল যার রক্তের এন্টিজেন্ট ছিল এবি(+)। খুনির পরিচয় সম্পর্কে আরো বলা হল যে সে অত্যন্ত সতর্ক, তার বুদ্ধিমত্তা সাধারণ প্রকৃতির। তবে কথার মাধ্যমে সে অন্যকে ভোলাতে পারে। খুনি ঘন ঘন ভ্রমণ করে। সে তার মা কিংবা স্ত্রীর সাথে বসবাস করতে পারে। সে একজন সাবেক মানসিক রোগী, মাসকসেবী হতে পারে। শারীর ব্যবচ্ছেদ বিদ্যায় তার কিছুটা ব্যুৎপত্তি থাকতে পারে। যদি কোন ব্যক্তি উপরিউক্ত বর্ণনার সাথে মিলে যায়, তবে তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ ও রক্ত পরীক্ষার সম্মুখীন করতে হবে। তবে এ সম্পর্কে বরাবরের মতোই পত্রিকায় খবর প্রকাশের প্রতি নিষেধাজ্ঞা বজায় থাকল।

খুনি হাত থেকে ফসকে গেল

নিরীক্ষা অভিযানের এক পর্যায়ে ১৯৮৪ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর মেজর জানাসোভস্কি নামের এক সাদা পোশাকের অফিসার রোস্টভ বাসস্টান্ডে উপরিউক্ত বর্ণনার এক ব্যক্তিকে এক কিশোরীর সাথে আলাপরত অবস্থায় দেখতে পান। এ কিশোরী বাসে উঠে চলে গেলে সন্দিগন্ধ ব্যক্তি কিছুক্ষণ আসেপাশে ঘোরাঘুরি করে অন্য একজন যুবতী মহিলার পাশে গিয়ে বসে আলাপ জমানোর চেষ্টা করে। বিষয়টি গোয়েন্দা অফিসারের কাছে সন্দেহজনক মনে হলে তিনি সন্দেহভাজনকে চ্যালেঞ্জ করে বসেন। সন্দেহ ভাজন জানান, তিনি শাকতি অঞ্চলে বসবাস করেন। তিনি পেশায় একজন মেশিন যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী। কম বয়সী মেয়েদের সাথে কথা বলার আগ্রহ সম্পর্কে লোকটি জানায়, তিনি ইতোপূর্বে শিক্ষকতার পেশায় নিয়োজত ছিলেন। তাই অভ্যাসবসত অল্প বয়সী ছেলেমেয়েদের সাথে কথা বলতে ভাল লাগে।  সন্দেহভাজনের উত্তরে সন’ষ্ট হয়ে পুলিশ অফিসার তাকে ছেড়ে দেন। বলাবাহুল্য, এ লোকই ছিল সেই কুখ্যাত আন্দ্রে রোমানভ চিকাটিলো যাকে নিয়ে আমাদের এই গল্পের অবতারণা।

তবে তাকে সেই সময় ছেড়ে দিলেও মেজর জানাসোভস্কি তাকে অনুসরণ করতে লাগলেন। চিকাটিলো বাস পরিবর্তন করলে জানাসোভস্কিও বাস পরিবর্তন করে তার সহগামী হলেন। প্রায় সময় তিনি চিকাটিলোকে মহিলাদের কাছাকাছি বসা , তাদের সাথে সখ্য তৈরি করার কাজে ব্যস্ত দেখতে পেলেন। এক সময় চিকাটিলো এক  পতিতার সাথে বসে তার কাছ থেকে কোটের নিচ দিয়ে মৌখিক যৌন সেবা গ্রহণ করলেন। এতে প্রকাশ্য স্থানে যৌনতা প্রদর্শনের অপরাধে মেজর জানাসোভস্কি তার দল নিয়ে তাকে গ্রেফতার করলেন। তার ব্যাগ তল্লাশি করা হল। এতে  একটি ভ্যাজলিনের কৌটা,  একটা রান্না ঘরে ব্যবহার্য চাকু এক খণ্ড রশি ও একটি নোংরা তোয়ালে পাওয়া গেল যা তাকে একজন সিরিয়াল কিলার হিসেবে সন্দেহ করা মতো বড় কিছু ছিল না।

চিকাটিলোর অতীত অপরাধ ইতিহাস জানার চেষ্টা করা হল। এতে জানা গেল যে, সে তার কোম্পানি থেকে ছোটখাট চুরির অপরাধে অভিযুক্ত। প্রথমবার গ্রেফতারের কারণ থেকেই প্রমাণিত হয় তার যৌন বিকৃতি রয়েছে। তার চেহারা ইতোপূর্বে তাসনিকোভ হত্যাকারীর চেহারার সাথে সাযুজ্যপূর্ণ। কিন্তু চিকাটিলো ছিল একজন কমিউনিস্ট সদস্য। অন্যদিকে তার রক্ত পরীক্ষায় তার এন্টিনজেন্ট ‘এ’ বলে শনাক্ত করা হল যা ইতোপূর্বে ভিকটিমদের শরীরে পাওয়া বীর্জের রক্তের এন্টিনজেন্ট এবি(+) থেকে পৃথক।  চিকাটিলোকে এ সিরিয়াল মার্ডারের সন্দেহের তালিকা থেকে আপাতত বাদ দেয়া হলেও তার নাম কার্ড ইন্ডেক্সে অন্তর্ভুক্ত করা হল। এ সময় গোয়েন্দাদের সন্দেহভাজন ও জিজ্ঞাসাবাদের তালিকায় ২৫ হাজারেরও বেশি ব্যক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।

এরপর চিকাটিলো তার পূর্বের কোম্পানির টাকা মেরে দেয়ার অভিযোগে এক বছরের সাজা খাটার জন্য কারান্তরে যায়। কিন্তু মাত্র তিন মাস পরেই ছাড়া পেয়ে ফিরে আসেন। তিনি নোভোচারকাসে একটি লোকোমোটিভ কোম্পানিতে চাকুরি গ্রহণ করেন। তবে  এক বছর কোন খুনের ঘটন ঘটাননি। তবে ১৯৮৫ সালের ৩১ জুলাই থেকে তিনি আবার তার হত্যাযজ্ঞে ফিরে যান।(অসমাপ্ত)