ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

আমরা সেই দেশে বসবাস করি যে দেশের মানুষরা নিজের সম্মান নিজেরাই বিলিয়ে দেয়। আমরা দেখেছি কিছু কুলাংগার আমাদের ক্রিকেটার তামিমের বৌ কে নিয়ে পৈশাচিক ট্রল করে। ফর্মহীনতায় থাকলে ক্রিকেটারের পরিবার নিয়ে আমরা এমন মন্তব্য করেছি যেটা দেখলে সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়। আমরা সেই দেশে বসবাস করি যে দেশের মানুষ পুরো বাংলাদেশের প্রান সাকিব আল হাসানের বৌ কে নিয়ে টিপ্পনি কাটে। তার বৌ জিন্স টপ পরে, মডেলিং করে হেনতেন! অথচ এই সাকিবের জন্যই পুরো বিশ্ব বাংলাদেশ কে আলাদাভাবে চিনেছে!! অদ্ভুত হলেও সত্য যে মানুষ গুলো সাকিবের বৌ এর পোষাক নিয়ে বাজে মন্তব্য করে তার লাইক লিস্টের টপে থাকে সানি লীওন কিংবা নাঈলা নাইমের পেইজ!

আমরা এমন একটা প্রজন্ম যারা ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বোনের সাথে আপলোড করা ফটোতে প্রচন্ড বাজে মন্তব্য করি, যেসব মন্তব্য একজন সুস্থ মস্তিস্কের মানুষের পক্ষে করা সম্ভব না! এমন কমেন্ট করি আমরা যেটা দেখলে হয়তো একটা ভাই লজ্জ্বায় মরে যাওয়ার মত অবস্থা হয়। ভাইয়ের সামনে বোনের যাওয়ার মত মুখ থাকেনা! প্রতিবাদে নাসির স্ট্যাটাস দেয় Don’t follow me. কতটা কষ্ট না পেলে পুরো বাংলাদেশের নায়ক মাশরাফি তার ফেসবুক পেইজ বাংলাদেশের জন্য রেসট্রিক্ট করে দেয়! এর থেকে আর কি লজ্জা আছে আমাদের! আমাদের কুলাঙ্গার প্রজন্ম স্টেডিয়ামে ঢুকে সাকিবের মত একটা সেলেব্রেটির বৌ কে টিজ করে! ধিক প্রজন্ম তোমায়!
আমাদের প্রজন্ম ক্যাপ্টেন মুশফিক এবং মাশরাফির বৌ কে নিয়ে বাজে কমেন্ট করতেও পিছপা হয়নি!

কতটা নিচে না নামলে এই প্রজন্মের মেয়েরা ৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধের কথা ভুলে গিয়ে স্টেডিয়ামে ম্যারি মি আফ্রিদি প্লাকার্ড নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে! এই প্রজন্মের ছেলেরা তো আরো ভয়াবহ! মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সহায়ক দেশ আমাদের বন্ধুরাষ্ট্র ইন্ডিয়া কে রেন্ডিয়া বলে গালি দেয়! ইন্ডিয়া থেকে খেলা দেখতে আসা শচীন ভক্ত সুধীরকে শারিরীক ভাবে লাঞ্ছিত করে! এই দেশের স্বনামধন্য একটা পত্রিকা তো আরো ভয়াবহ! তারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করে পাক-ভারত যুদ্ধ বলে চালিয়ে দেয়ার ঘৃনিত অপচেষ্টা চালায়!  ক্রিকেটার মোস্তাফিজ আর ইন্ডিয়ান ক্রিকেট টিম কে কটুক্তি করে এমন ভাবে ট্রল ফটো ছাপায় যেটাতে আমাদের দেশের মান ইজ্জত বিলীন করে দেয়ার মত ইস্যু খুজে পায় বিশ্ব মিডিয়া!! পরে আবার নির্লজ্বের মত ক্ষমা চায় যেটা তাদের পুরানো অভ্যাস!

ধিক্কার জানাই এই প্রজন্মের! সর্বশেষ গতকাল যোগ হয়েছে নতুন ইস্যু! সাকিবের রেস্টুরেন্টে সকল খেলোয়ারদের ইফতারির দাওয়াত ছিল যেখানে গিয়েছিল হিন্দু লিটন দাস আর সৌম্য সরকার। সেই ফটো মুশফিক তার ফেসবুক ওয়ালে প্রকাশ করে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন! সেখানে হামলা করেছে একদল উগ্র ধর্মান্ধ পাবলিক! তাদের ভাষ্যমতে হিন্দু নিয়ে ইফতারি করলে নাকি রোযা হালকা হয়ে যায়! এই কি তাহলে অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশ! আমরা কি এমন ধর্মনিরেপক্ষ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চেয়েছিলাম?

পরে মুশফিক ক্ষেপে গিয়ে স্ট্যাটাস দেয়
” Really shocked to see some comments. Around 30 fans got banned today and its very disappointing. Please try to keep the opinions clean.”

কি লজ্জাজনক ঘটনা ভাবুন একবার! কতটা বিব্রতকর অবস্থায় না পড়লে মুশি ৩০ জনকে ব্যান করতে বাধ্য হয়!! আমরা কি আসলেই এমন প্রজন্ম চেয়েছিলাম? ধিক তোমায় হে প্রজন্ম! তোমরা যারা দেশের মানসম্মান নিয়ে খেলতেছো তাদের জন্য এক দলা থুতু আর অসীম ঘৃনা!! ধিক তোমায় হে প্রজন্ম!

এবার তোরা কুলাঙ্গার থেকে মানুষ হ!!