ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বিজয়ের মাসে হরতাল আহবান করেছিল বামদল।গত ১৮ই ডিসেম্বর তাদের ডাকা হরতাল মোটামুটি শান্তিপূর্নই ছিল বলা চলে। যদিও কোন কোন মিডিয়া তাদের ভাংচুরের কিছু খবর প্রকাশ করেছে।বেলা বাড়ার সাথে সাথে তাদের ভাংচুরের পরিমাণ একেবারই কমে গেছে। জনগন যখন কর্ম স্থলে যাওয়ার জন্য রাস্তায় বের হয়েছে তখন কোন প্রকার যানবাহন না পেয়ে একরকম হতাশ এবং অবাক হয়েছে। কারণ মানুষের ধারনা হরতাল সফল করার মত পর্যাপ্ত লোকবল সি পি বি কিংবা বাসদ কারই ছিলনা। তাদের প্রশ্ন তাহলে হরতাল সফল হয় কিভাবে? এই প্রশ্নের উত্তর খুজতে গিয়েই বেরিয়ে এসেছে সব গোপন খবর। এ যেন কেচো খুড়তে সাপ বেরিয়ে পড়ার থেকেও বড় কাহিনী!পূর্বের হরতাল গুলোতে পুলিশ ছিল খুবই সক্রিয়। যেখানেই পিকেটিং সেখানই হামলা, লাঠি চার্জ টিয়ারশেল রাবার বুলেট জলকামান আরও কত কী! অথচ গতকালের হরতালে পুলিশ আর পিকেটার ছিল একই বেঞ্চে বসা। বি আর টি সি র বাস গুলো যে কোন হরতাল বা অবরোধ কর্মসূচিতেই চলে। কিন্ত কাল বি আর টি সি র একটি বাস ও চলেনি। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলতে গেলে তারা জানায় উপরের নির্দেশ আছে বাস না চালানোর জন্য। পাবলিক বাস মালিক সমিতিতে খুজ নিয়ে জানা যায় একই ধরনের উত্তর। এবার কিছু ভিডিও ফুটেজ এর কথা বলি, কয়েকটি টেলিভিশন চ্যানেল তাদের খবর এ দেখাচ্ছে যে পুলিশ রাস্তায় বেরিকেড দিয়ে বসে আছে এবং বলছে যে এ দিক দিয়ে গাড়ি যাওয়া যাবেনা অন্যদিকে যান। সাংবাদিকদের প্রশ্নে ঐ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন এটা ‍উপরের আদেশ আমার কিছু করার নেই যার প্রমাণ এই লিংকে রয়েছে – লিংক

অন্যদিকে কিছু জায়গায় বিশেষ করে বিশ্ব বিদ্যালয়ের মোড়ে মোড়ে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ব্যানারে ডজন খানেক নেতা কর্মী পতাকা নিয়ে বসে আছে কেউ আবার গান গাইছে। আর পুলিশ চা খাচ্ছে। তাদের প্রশ্ন করে জানা যায় তাদের কিছু করার নেই সব উপরের নির্দেশ। অন্যান্য হরতালের মত এটিতেও বিজিবি র সদস্য ছিল কিন্ত পিকেটিং ঠেকাতে নয় পিকেটারদের রক্ষা করতে। তাদের আশংকা ছিল শিবির যদি এদের উপর হামলা করে। অন্যান্য হরতালের মত এবার ও ম খা আলমগীর সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন বটে তবে বক্তব্য ভিন্ন তিনি হরতালকারী দের কে ধন্যবাদ দিলেন। আর সিপিবি বলল যে তাদের হরতাল জনগণ সফল করেছে। কিন্ত মিডিয়াতে জনগন বলল আমরা হরতাল চাইনা জীবনে প্রথম দেখলাম সরকারীদল হরতাল করে। এ সরকার কে এ জন্য মাশুল গুনতে হবে। সবশেষে বলতে হয় পুলিশি হরতালে জনগণ চলাচল করতে পারেনি ঠিক কিন্ত এই হরতালের প্রতি তাদের ঘৃনা প্রকাশ করেছে মিডিয়াতে।