ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রী দয়া করে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। যারা মানুষের জীবনকে নিয়ে একধরনের ছেলেখেলায় মেতে উঠে। যাদের খামখেয়ালিপনায় হাজার হাজার পরিবারের আশা আকাংখার মৃত্যু ঘটে। যাদের অবহেলার কারণে প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক লোক নিহত হয় অথবা পঙ্গুত্ব বরণ করে অতি কষ্টে দিন যাপন করে। যাদের দায়িত্বহীনতার কারণে দেশের বিপুল সম্পদ নষ্ট হয়। আমি গাড়ী চালকদের কথা বলছি। যারা দু’ চারদিন কোন এক ওস্তাদের কাছ থেকে সামান্য প্রশিক্ষণ নিয়েই গাড়ী চালাতে শুরু করে দেয়। যাদের মধ্যে কোন মানবতাবোধ পরিলক্ষিত হয়না। তাঁদের বিরুদ্ধে দয়া করে ব্যবস্থা নিন। সব চালকই যে খারাপ তা আমি বলছি না, যারা দায়িত্বহীনতার সাথে গাড়ী চালান আমি কেবল তাঁদের কথাই বলছি।

সড়ক দূর্ঘটনার অনেকগুলো কারণ রয়েছে, তা আমরা কমবেশী সবাই জানি। যেমন: গাড়ী চালানো সম্পর্কে চালকদের সঠিক জ্ঞান না থাকা, রোড সাইন সম্পর্কে জ্ঞান না থাকা, যত্রতত্র ওভারটেকিং করা, যেখানে সেখানে গাড়ী পার্কি করা, দ্রুত গতিতে গাড়ী চালানো, গাড়ী চালানোর সময় অন্যের সাথে কথা বলা, চলন্ত গাড়ীতে মোবাইলে কথা বলা ইত্যাদি। এছাড়া, আমাদের দেশে অপরিকল্পিত উপায়ে রাস্তা নির্মাণ তো আছেই। রাস্তার বাকগুলোও সড়ক দূর্ঘ্টনার অন্যতম কারণ। বাঁকগুলোতে চালকরা গাড়ির গতি না কমিয়ে দ্রুত গতিতে গাড়ী চালানোও সড়ক দূর্ঘটনার জন্য দায়ী।

সর্বোপরি অনেক চালকের মধ্যে সঠিক জ্ঞান, দায়িত্ববোধ ও মানতাবোধের অভাবের কারণে আমাদের দেশের সড়ক দুর্ঘটনাগুলো ঘটে থাকে। ইদানিং চলন্ত গাড়িতে মোবাইলে কথা বলার কারণেও সড়ক দূর্ঘটনা ঘটছে। চালক যখন চলন্ত গাড়িতে মোবাইলে কথা বলেন তখন তার ধ্যান ধারণা তিনি যাঁর সাথে কথা বলছেন তাঁর কাছে চলে যায়। সঠিকভাবে গাড়ী চালানোতে তখন তার ধ্যান-ধারণা থাকেনা। ফলে একপর্যায়ে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিপরীত মূখী কোন গাড়ীর সাথে সংঘর্ষ ঘটে নয়তো গাড়িটি রাস্তার পাশের কোন খাদে গিয়ে পড়ে এবং যা হবার তা হয়। এরকম একটি ঘটনার কথা শেয়ার করছি- গতকাল আমি একটি জরুরি কাজে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলায় গিয়েছিলাম। রাতে যে গাড়িতে করে ফিরছিলাম সে গাড়ীর চালক কিছুক্ষণ পরপর মোবাইলে কথা বলছিল এবং বোঝাই যাচ্ছিল তার পুরো ধ্যান-ধারণা গাড়ী চালানোতে নেই। কারণ গাড়িটি রাস্তার ডান প্রান্তে একবার বা প্রান্তে একবার যাচ্ছিল এবং বেশ ক’বার তো গাড়ীটি রাস্তার খাদে পড়তে যাচ্ছিল। অল্পের জন্য গিয়ে পড়েনি। আবার একবার তো বিপরীতমুখী একটি গাড়ির সাথে প্রায় সংঘর্ষ ঘটেই গিয়েছিল উভয় চালক যদি হার্ড ব্রেক না কষত তাহলে সংঘর্ষ ঘটেই যেতো, তখন কী হতো কে জানে। চালকের এই খামখেয়ালীপনা খুবই বেদনাদায়ক। আমি তাকে অনেকবার বুঝাবার চেষ্টা করেও পারিনি। শেষপর্যন্ত আমি স্বার্থপরের মতো একাই ঐ গাড়ী থেকেই নেমে পড়লাম। এবং পরবর্তীতে অন্য গাড়ীতে করে আমার গন্তব্যে পৌঁছলাম। কিন্তু যাঁরা ঐ গাড়ীতে থেকে গেলেন তাঁদের ভাগ্যে কী রয়েছে, একমাত্র সৃষ্টিকর্তাই জানেন।

বাসায় ফিরে টেলিভিশনে বিভিন্ন জায়গায় সড়ক দূর্ঘটনার খবর দেখতে পেলাম। এটি হয়তো আমরা প্রায় প্রতিদিনই দেখি কিন্তু এদিন আমাকে খবরটি আরোও বেশৗ বেদনাহত করল। কারণ এই ভেবে যে, আমিও হয়তো আজ এরকম একটি খবর হতে পারতাম! যেটি মোটেই সুখকর নয়।

সুতরাং অদক্ষ চালক যারা ইতিমধ্যে গাড়ী চালানো শুরু করে দিয়েছে তাঁদেরকে অন্তত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করুন। সড়ক দূর্ঘটনায় প্রাণহানি থেকে মানুষকে রক্ষা করুন। সড়ক দূর্ঘটনার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।