ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

এবার সারাদেশে গড়ে ৮৬.৩৭% শিক্ষার্থী পাস করেছে। পাসের দিক থেকে সিলেট শিক্ষা বোর্ড সবার চেয়ে এগিয়ে। এ বোর্ডে পাসের হার ৯১.৭৮%। সারাদেশে জিপিএ ৫.০০ অর্জন করেছে ৮২ হাজার ২১২ জন।

যারা সাফল্যের সাথে পাস করেছে তাঁরা সহ তাঁদের বাবা-মা, পরিবার পরিজন সবাই অতি আনন্দিত। সব বাবা-মা’য়ের আকাঙ্খা থাকে তাঁদের সন্তান যেন পরীক্ষায় পাস করে। এবার বোধ করি অধিকাংশ শিক্ষার্থীই তাঁদের বাবা-মা’য়ের সেই আকাঙ্খা পূরণ করেছে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে পাসের হার তো বেড়েছে, শিক্ষার মান কি সেভাবে বেড়েছে?
এ প্রশ্নটা দেশের অনেক বরেণ্য শিক্ষাবিদ যেমন করছেন, তেমনি অনেক সাধারণ নাগরিকও একই প্রশ্ন করছেন। অনেকেই এটাকে রাজনৈতিক পাসের হার হিসেবে মন্তব্য করছেন। যদি সত্যি সত্যি রাজনৈতিক বিবেচনায় পাসের হার বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে তাহলে সেটি হবে আমাদের জাতির জন্যে ভয়ানক। পরীক্ষা পাসের সাথে রাজনৈতিক পাসের বিবেচনা করা কি কাম্য?

আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি কোন পরীক্ষা পাসের হার বৃদ্ধির সাথে রাজনৈতিক কোন সম্পর্ক নেই। পরীক্ষায় যাঁরা পাস করেছে তাঁরা সবাই সত্যি সত্যি তাঁদের মেধার বদৌলতে পাস করেছে।

এবার যারা এস.এস.সি পরীক্ষায় কৃতকার্য হলেন তাঁদের সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। এর ধারাবাহিকতা যেন ভবিষ্যতেও থাকে সেদিকে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। সবাই হয়তো তাঁদের প্রত্যাশিত ভালো কলেজে ভর্তি হবার সুযোগ পাবেনা, তারপরও যে যেই কলেজেই ভর্তি হবে তাঁরা যেন সেখানে মনযোগ সহকারে লেখাপড়া করে ভবিষ্যতে এই সাফল্যের ধারাবহিকতা বজায় রাখে।

এস.এস.সি পরীক্ষায় কৃতকার্য সবার জন্যে শুভ কামনা রইল।