ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

মানুষের জীবন পানির সাথে একসূত্রে গাঁথা। এই ভূ-পৃষ্ঠের যেমন ৭০ ভাগই পানিতে ঢাকা, তেমন আমাদের শরীরেরও প্রায় ৭০ ভাগ পানি। শুধু আমাদের জীবনই নয়, পৃথিবীর সব জীব-জন্তু, কীট-পতঙ্গ, গাছপালা সবকিছুর জীবনই এই পানির ওপর নির্ভরশীল।

বিশ্বব্যাপী পানির হাহাকার
১. বিশ্বের প্রায় ৮০ টি দেশে নিরাপদ পানির সমস্যা রয়েছে;
২. পৃথিবীর প্রায় ৪০ ভাগ মানুষ পানির জন্য সংগ্রাম করছে;
৩. জাতিসংঘ তথ্য অনুসারে আগামী ২০ বছরের কম সময়ের মধ্যে বিশুদ্ধ পানির চাহিদা ৫০% বৃদ্ধি পাবে;
৪. ভূ-গর্ভের চার ভাগের ১/৩ পানিতে পরিপূর্ণ হলেও মানুষের ব্যবহারের উপযোগী পানি মাত্র ১ ভাগ;

বাংলাদেশেও সুপেয় পানি হ্রাস পাচ্ছে
১. বাংলাদেশে বেশিরভাগ ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবহার করা হচ্ছে;
২. শিল্প কারাখানায় পানি বেশি ব্যবহার ও দুষণ করছে;
৩. পানির আধার (নদী, খাল, বিল, পুকুর) দখল ও দূষণের শিকার;
৪. ভূগর্ভস্থ পানির স্তর দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে;
৫. শহরাঞ্চলে টয়লেটের বর্জ্য পরিস্কারের জন্য প্রতিবারে ১০/১২ লিটার পানি ব্যবহার করছে;
৬. দরিদ্র মানুষ বসবাস করে এমন এলাকায় প্রতিজনে প্রতিদিন ২০/৩০ লিটার পানি খরচ হয়। ধনী এলাকার মানুষের মধ্যে পানি ব্যবহারর হার দৈনিক ১০০ লিটার এর বেশি;
৭. এছাড়া দৈনন্দিন ব্যবহৃত পানির এক তৃতীয়াংশ টয়লেট ব্যবহারে অপচয় করছি;

পানির পূণর্ব্যবহার
দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত পানি একবার ব্যবহারের পর তা পরিত্যক্ত পানি হয়ে যায়। এই পরিত্যক্ত পানি কে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায়: ব্লাক ওয়াটার (মল-ম্ত্রূযুক্ত টয়লেটে ব্যবহৃত পানি) এবং গ্রে-ওয়াটার ( রান্না-বান্না, কাপড় ধোয়া পানি, গোসলসহ ইত্যাদি পানি)। গ্রে-ওয়াটার (রান্না-বান্না, কাপড় ধোয়া পানি, গোসলসহ ইত্যাদি পানি) প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে টয়লেটের বর্জ্য পরিস্কার এবং বাড়ীর আশেপাশের বাগানে পূণর্ব্যবহার করা হয়। এতে করে যেমন পানির অপচয় কমানো যায় আবার ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবহার অনেককাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব।

পানির উৎস রক্ষায়
১. নদী, খাল, পুকুর, ডোবা ভরাট এবং শিল্প ও পয়ঃবর্জ্য ফেলা কার্যকরভাবে বন্ধ করা;
২. নগর ও পৌর এলাকায় ভবনে বৃষ্টির পানি সংরনের ব্যবস্থা করা;
৩. বৃষ্টির পানির ভূ-গর্ভে রিজার্ভ করার জন্য ব্যবস্থা করা;
৪. ভূ-গর্ভস্থ পানির উত্তোলন হ্রাস করা;
৫. জলাধারকে পিছন দিয়ে অবকাঠামো নির্মাণ নিষিদ্ধ করা;
৬. জীববৈচিত্র রায় জলাধারের চারপাশ দিয়ে কংক্রিট বাঁধাই না করা;
৭. ভরাট হওয়া নদী, নালা, খাল, বিল, পুকুর উদ্ধারের পরিকল্পনা ও বাজটে প্রণয়ন করা;
৮. জলাধার দখল ও দুষণের দৃষ্টান্তমূলক ফৌজদারী এবং আর্থিক দন্ডের বিধান করা;