ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

‘ঢাকায় গৃহস্থালি এবং শিল্প প্রতিষ্ঠানে নানা প্রয়োজনে প্রতিদিন অনেক পানি ব্যবহৃত হয়। এই ব্যবহৃত পানির ৮০ শতাংশ প্রক্রিয়াজাত করার মাধ্যমে পূণরায় নগর কৃষি বা টয়লেট ফ্যাশ, স্ট্রিট গার্ডেনিং এর কাজে ব্যবহার করা সম্ভব। যা আগামী দিনে ঢাকার পানিসঙ্কট দূর করতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

২০২৫ সালের মধ্যে এ শহর দুই কোটি মানুষের আবাসে পরিণত হবে। ফলে পানি চাহিদা অনেক বাড়বে। ঢাকায় বর্তমানে ২০ শতাংশ পানি খাওয়া ও রান্নার কাজে এবং ৮০ শতাংশ পানি গোসল, কাপড় ধোয়া এবং টয়লেট পরিস্কারের জন্য ব্যবহৃত হয়। স্বাভাবিকভাবে ৮০% পানযোগ্য পানি বর্জ্যে পরিনত হয়। পানি পূন:প্রক্রিয়াকরণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে এ বিপুল পারিমান পানি পূণর্ব্যবহার নিশ্চিত করে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার উপর ক্রমবর্ধমান চাপ কমানো সম্ভব।

পানি পূন:প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে কৃষি সেচকার্যে, শিল্পকারখানায়, টয়লেট পরিস্কারকরণে এবং ভূগর্ভস্থ পানির স্তর উন্নীতকরণে কার্যকর পানি ব্যবহার নিশ্চিত করা যায়। মূল্য বৃদ্ধির সাথে সাথে পানি প্রাপ্তি কঠিন হয়ে পড়ায় আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যবহৃত পানি পূনপরিশোধন করে পূণর্ব্যবহার নিশ্চিত করা জরুরী। পূন:প্রক্রিয়াজাত পানি ব্যবহারে প্রকৃতিতে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন ধরনের দূষণকারী উপাদান হ্রাস ও ব্যবহারযোগ্য পানির নতুন উৎস পাওয়া যায়। অতএব, সাশ্রয়ী, উপযুক্ত ও স্থায়ী প্রযুক্তি ব্যবহারে ব্যবহৃত পানি পূণর্ব্যবহার প্রক্রিয়ার উন্নয়ন এবং বাস্তবায়ন জরুরী।

আমাদের পানির উৎস অনেক হলেও সুপেয় পানির পরিমাণ কম। পানির প্রায় ৮৭ভাগ ভূগর্ভ থেকে উত্তোলন করা হচ্ছে। বিপরীত দিকে ঢাকার জলাশয়গুলো ভরাট হয়ে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি কিংবা ভূ-উপরিভাগের পানি ভূগর্ভে যেতে পারছে না। অর্থাৎ ভূগর্ভের পানি যে রিচার্জ হবার কথা, সেটি হচ্ছে না। যে কারণে ভূগর্ভের পানি প্রতি বছর নীচে নেমে যাচ্ছে।

ঢাকায় পানির ব্যবহার আর ঢাকার বাইরে পানির ব্যবহারের চিত্র এক নয়। ঢাকার বাইরে পানি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় কৃষিকাজে। এক্ষেত্রে কিভাবে উপরিভাগের পানি বেশি ব্যবহার করা যায় সেদিকে নজর দিতে হবে। এজন্য পানির উৎসগুলোকে সংরণ করতে হবে সর্বাগ্রে। নতুন নতুন আবাসন প্রকল্পে পানি রিচার্জ করা ও পানির পূণর্ব্যবহারের সুযোগ রাখা বাধ্যতামূলক করতে হবে। তবেই আগামী দিনের পানি সঙ্কট মোকাবেলা করা সম্ভব হবে।

ঢাকা ওয়াসা সীমাবদ্ধতার মাঝেও ঢাকাবাসীকে পানি সরবরাহ করে যাচ্ছে। ওয়াসার পানি পানযোগ্যও। কিন্তু সরবরাহ করা পাইপলাইনের দুর্বলতার কারণে অনেক সময় মানসম্মত পানি পাওয়া যায় না। আশার কথা, ঢাকা ওয়াসা পাইপ লাইনের দুর্বলতা দূর করারও উদ্যোগ নিয়েছে। ঢাকা প্রয়োজন অনুযায়ী পানির চাহিদা আগামীতে আরও বাড়বে। তাই আমাদের এখনি পানির পূণর্ব্যবহারের দিকে এগুতে হবে। বিশেষ করে, নগরে বাগান-নার্সারি বা কৃষিকাজ, রাস্তাঘাট পরিস্কার, টয়লেট ফ্যাশ এর মতো কাজে একবার ব্যবহার করা পানি কিভাবে ব্যবহার করা যায় সে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।