ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

মাননীয়া শেখ হাসিনা,আপনাকে আমাদের কিছু বলার আছে। বলা সম্ভব নয় তাই লিখছি।আপনি আমাদেরকে চেনেন না। চেনার কোন কারনও নেই। কারন আপনার চারিদিকে কারা যেন এক অদৃশ্য দেয়াল তৈরী করে রেখেছে যা ভেদ করে আপনি আমাদের দেখতে পাচ্ছেন না। দেখলে চিনতে পারতেন।বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি সভায় আমরা ছিলাম,সংগ্রামে ছিলাম।আমরা ছিলাম তাঁর শক্তি তাঁর সাহস তাঁর অস্তিত্বের সাথে মিশেছিলাম আমরা।আজও আমাদের অস্তিত্বের সাথে মিশে আছেন তিনি।চিনেছেন ? হ্যাঁ, আমরা জনগন। রাজনীতিবিদদের কাছে ভোটের আগে আমরা জনগন,পরে আমজনতা।

জানি এই লিখাটাও আপনার দৃষ্টিগোচর হওয়ার বিন্দুমাত্র সম্ভাবনা নেই। তবু লিখছি। কোন প্রতিবাদ জানানোর জন্য নয় শুধু একটু ক্ষোভ প্রকাশের জন্য।

বন্যা যখন আমাদের ফসল ডুবিয়ে দেয়,ঝড় যখন ঘর উড়িয়ে নিয়ে যায়,নদীর ভাঙনে যখন আমাদের ভিটে মাটি বিলীন হয়ে যায, ক্ষুধার অন্ন জোগাড় হয় না, তার জন্য আমাদের কোন ক্ষোভ নেই।

যুবক,ডেসটিনি, ইউনিপেইড,শেয়ার বাজার যখন আমাদের শেষ কড়িটিও কেড়ে নিয়ে যায় তখনও আমরা কোন প্রতিবাদ করি না। হলমার্ক্, কিছু সরকারি কর্মকর্তা মিলে যখন হাজার হাজার কোটি আত্মসাৎ করে একটি দেশের অর্থনৈতিক অবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়ে দেউলিয়া রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় তখনও আমাদের আশা ভঙ্গ হয় না।

যখন দেখি আমাদের মেধাবী সন্তানরা রাস্তায় নেমে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার পক্ষে বিপক্ষে মিছিল করছে,বুয়েটের মতো সর্বোচ্চ মেধাবীদের বিদ্যাপীঠের শিক্ষার্থীরা শ্রেণী কক্ষ ছেড়ে রাস্তায় মিছিল করছে শ্লোগান দিচ্ছে তখন মনে ক্ষোভ জাগে। যখন ছাত্রাবাস পুড়িয়ে দেয়,শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী ধর্ষিত হয় তখন মন প্রতিবাদী হয়ে উঠে।

মনে হয় ৭১এর ডিসেম্বর ফিরে এসেছে।গোলাম আযম, নিজামি, মুজাহিদরা ৭১ এ মেধাবী তৈরীর কারিগরদের হত্যা করে এদেশকে মেধাশূন্য করে দিয়ে চিরদিনের জন্য পঙ্গু করে দিতে চেযেছিল। তখন তারা সফল হতে পারেনি।

ওরা কি আবার ফিরে এসেছে ? দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধংস করে দিয়ে পুরো জাতির মেরুদণ্ড ভেঙে দিতে? ওরা এবারও সফল হবে না কারন আপনি আছেন।আপনিই পারেন এসব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিতে।

আপনার চারদিকের ঐ অদৃশ্য দেয়াল ভেঙে দিয়ে বাইরে তাকান।আমাদেরকে দেখবেন। আমরা সেই জনগন যারা বঙ্গবন্ধুর সাহস ছিলাম, শক্তি ছিলাম,যাদের অস্তিত্বের সাথে বঙ্গবন্ধু আজও মিশে আছে। আমরা আপনার জন্য দাঁড়িয়ে আছি। কোন দাবি নিয়ে নয়, ক্ষোভ বা প্রতিবাদ জানাতে নয়।একটি মাত্র প্রত্যাশা নিয়ে।

বঙ্গবন্ধু আমাদের একটি স্বাধীন দেশ দিয়েছে, আপনি আমাদের সন্তানদের জন্য একটি আবাসযোগ্য আবাসভূমি দিন।

আপনিই পারবেন।