ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 
final

 

১। ছেলেদের বিশ্বকাপ প্রথম শুরু হয় ১৯৭৫ সালে। আর প্রথম আন্তর্জাতিক ওয়ান্ডে ক্রিকেট ১৯৭১ সালে শুরু হয় । এর পেছনে একটা মজার কারণ আছে । তা হল, মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়া বনাম ইংল্যান্ডের মধ্যকার টেস্ট ম্যাচ পঞ্চম দিনের পর স্থগিত হওয়ার কারণ ।

২। ১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপ শুরুর পর থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ টানা তিনবার ফাইনাল খেলে । প্রথম দুইবার জয়ের পর তৃতীয় বার ভারতের কাছে হেরে যায় ।

৩। ১৯৯২ সালের পর এইবার ২০১৫ সালে দুইবারই বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক ছিল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড । আর প্রথম বার এই দুই দলের কেউই ফাইনাল এ উঠতে সক্ষম হয়নি ।

৪। ২০০৭ বিশ্বকাপে  ভারতের , বারমুডার বিপক্ষে বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ করা ৪১৩ রানের রেকোর্ড ভেঙে দেয় অস্ট্রেলিয়া। তারা আফগানিস্তানের বিপক্ষে করে ৪১৭ রান ।

৫। সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়ের রেকর্ড ও এই বিশ্বকাপে । অস্ট্রেলিয়া ২৭৫ রানে আফগানিস্তান কে পরাজিত করে।

৬। গ্লেন ম্যাগ্রার ৩৯ ম্যাচে ৭১ উইকেট আর শচীন টেন্ডুলকারের ৪৫ ম্যাচে ২২৭৮ রানের রেকর্ড এখন ও অক্ষত ।

৭। এছাড়াও এবারের বিশ্বকাপে যে নতুন কিছু হইছে যা আগের বিশ্বকাপ গুলোতে হয় নাই। যেমন ডি আর এস সিস্টেম , ফিল্ড রেস্ট্রিকশন আর পাওয়ারপ্লের নিয়ম পরিবর্তন , দুই পাশ থেকে দুটি নতুন বল , এবং নতুন বিশ্বকাপ ফরমেট ।

৮। ১৯৯৯ সাল থেকে বাংলাদেশ বিশ্বকাপ খেললেও এবারই প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নিত হয় । এবং এবারই প্রথম বাংলাদেশের কেউ বিশ্বকাপে সেঞ্চুরি করার মর্জাদা লাভ করে।

 

ওয়ার্ল্ড কাপঃ সাল ফাইনালের দলের নাম ফাইনালের ফলাফল
১৯৭৫ ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম অস্ট্রেলিয়া  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৭ রানে জয়ী
১৯৭৯ ইংল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯২ রানে জয়ী
১৯৮৩ ইন্ডিয়া বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ইন্ডিয়া ৪৩ রানে জয়ী
১৯৮৭ ইংল্যান্ড বনাম অস্ট্রেলিয়া  অস্ট্রেলিয়া ৭ রানে জয়ী
১৯৯২ ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তান  পাকিস্তান ২২ রানে জয়ী
১৯৯৬ শ্রীলঙ্কা বনাম অস্ট্রেলিয়া  শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে জয়ী
১৯৯৯ পাকিস্তান বনাম অস্ট্রেলিয়া  অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটে জয়ী
২০০৩ ইন্ডিয়া বনাম অস্ট্রেলিয়া  অস্ট্রেলিয়া ১২৫ রানে জয়ী
২০০৭ শ্রীলঙ্কা বনাম অস্ট্রেলিয়া  অস্ট্রেলিয়া ৫৩ রানে জয়ী
২০১১ শ্রীলঙ্কা বনাম ইন্ডিয়া  ইন্ডিয়া ৬ উইকেটে জয়ী
২০১৫ নিউজিল্যান্ড বনাম অস্ট্রেলিয়া  অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে জয়ী