ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 
vat

 

আপাত দৃষ্টিতে , এইটাকে তেমন খারাপ কিছু মনে হয় না । এত এত টাকা ইনকাম করতেছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি , না হয় দিল কিছু টাকা সরকারকে ! তবে শিক্ষার জন্য দেশের স্টুডেন্টরা ভ্যাট দিবে সেটা মহা অন্যায়। এ নিয়ে দেশের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের বিশাল আন্দোলন চলছে । দেশের অর্থমন্ত্রী বারবার বোঝানোর চেষ্টা করতেছেন , এই ভ্যাট স্টুডেন্টদের উপর নয়। NBR থেকে একের পর এক মেসেজ আসতেছে মোবাইলে এই বিষয়ে । কিন্তু কিছু প্রশ্ন থেকে যায় ! তাদের কথাগুলি কি আসলে ভাওতাবাজী না সত্য।
১। সরকার, এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলির অর্থের যোগান যেমন স্টুডেন্টদের ক্রেডিট ফি , ভর্তি ফি ইত্যাদি ইত্যাদি এই বিষয়গুলি কতটুকু মনিটরিং করছে ? কারণ তারা যদি মনিটরিং না করে , তবে এইটা খুবই স্বাভাবিক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিজের পকেটের টাকা থেকে সরকারকে দিবে না । অবশ্যই তা স্টুডেন্ট থেকে নিয়েই দিবে।

২। ধরে নিলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ রাজী/বাধ্য হল সরকারের ফি দিতে । তখন প্রশ্ন থেকে যায়, আসলেই কি যে কোন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সকল ফি গুলির উপর সরকারের কন্ট্রল আছে ? কারণ তা না থাকলে এরা অন্য যে কোন নতুন এক ফি চালু করবে সেটা খুবই স্বাভাবিক। কি করতে পারবে স্টুডেন্টরা যদি বিশ্ববিদ্যালয়গুলি ‘বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়ন ফি’ নামে কিছু চালু করে এবং সেটার নামে উঠায় নিল দিয়ে দেয়া ভ্যাটকৃত টাকা ।
এ জাতি কখনোই যে ভাল কিছুতে এক ছাতার নিচে আসতে পারে না তার কয়েকটা উদাহরণ দেয়া যায়।

১। শিক্ষায় ভ্যাট যুক্ত হওয়া মূলত প্রমাণ করে একটা দেশ কতখানি পিছিয়ে আছে। এতই খারাপ অবস্থা দেশের যে , স্টুডেন্টদের থেকে ভ্যাট নিতে হচ্ছে! যে কোন একটা আন্দোলন শুরু হইলে, চারপাশ থেকে প্রোপাগান্ডা ছড়ানোর চেষ্টা করা হয় , আন্দোলন বানচালের জন্য । বুঝে না বুঝে কোন একটা ইস্যুর মধ্যে ত্যানা পেচানোর চেষ্টায় থাকা জনগণের সংখ্যা অনেক বেশি। কার না কার স্লোগান পছন্দ হয় নাই আপনার , এই জন্যে তো আপনি বলতে পারেননা আন্দোলনের উদ্দেশ্য ভুয়া। শতখানেকের মধ্যে দুইটা স্টুপিড থাকবে এইটা খুবই স্বাভাবিক তাদের স্টুপিডিটি হাইলাইট করার কোন মানে নাই ।

২। এইটা একটা ব্যাপার গেল । আন্দোলনের মুল ব্যাসিক যেটা , সেটা হচ্ছে গণমাধ্যম সহ যত বেশি পারা যায় যে কোন সংঘটন কিংবা রুট পিপলদের সাপোর্টের পরিমান বাড়ানো । আন্দোলনকারীদের মধ্যে কেউ কেউ এদের

সমালোচনা সহ্য না করতে পেরে কিংবা কোন এক দৈব কারনে উলটা পথ বেছে নিয়েছে। এইখানের মধ্যে কিভাবে কিভাবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলিকে টানাহ্যাচরা করতেছে। বিভিন্ন উদাহরণ দিয়ে অনেকে বোঝানোর চেষ্টা করতেছে , “আমরা ইচ্ছা করে গরিবের ভার্সিটি পাবলিক ভার্সিটি তে ভর্তি হইনাই ” ,” পাব্লিকের ওদের থেকে আমরা আসলে স্টুডেন্ট ভাল ” , “আমাদের চাকরির বাজার ভাল ” । আরও কত কি !
আমি মনে মনে বলি , ভাইরে/বোনরে এই কথাগুলি কি কেউ তোরে জিজ্ঞেস করছে?

ক্যান তাইলে তুই ত্যানা প্যাচাইতেছিস ?
এমনতো না কাউকে আঘাত করলে এই আন্দোলন সফল হয়ে যাবে । নিজেদের মূল লক্ষ্য যেটা সেটা থকে যাতে আলোচনা সরে না যায়, সেটার দিকে নজর রাখতে না পারলে , কিংবা শুধু শুধু পক্ষের শক্তিদের আঘাত করলে এই অন্যায়ের বিপক্ষে আন্দোলন ও ব্যর্থ হতে পারে।
হয়তো এদের জ্ঞান হবে, হয়তো না ! যত দ্রুত তারা এই সব বস্তাপচা ধ্যান-ধারনা থেকে বের হতে পারবে দেশের জন্য ততই মঙ্গল।
সরকারেরও খুব দ্রুত বোধোদয় হোক এই প্রত্যাশায় !
I support ‘No vat on Education’