ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আজকে এই খবরটা পড়লাম আনন্দবাজার পত্রিকায়
মনটাই খারাপ হয়ে গেল ।
একজন বাবা অথবা মা তার সন্তানকে কি রকম ভালবাসে তা জানি না (কারণ এখনও বাবা হই নাই ), শুধু কল্পনাই করতে পারি । যখন অসুস্থ ছেলে মেয়ে কে নিয়ে কোন বাবা মা হাসপাতালে আসেন তখন এটা খুব ভাল মত বুঝা যায় । দেখা গেছে সন্তান এর হাত কেটে গেছে , সেলাই দিতে হবে বাচ্চা কান্নাকাটি করছে । আমরা বলে দেই যে অবশ করে সেলাই দেওয়া হবে , ব্যাথা পাবে না , তারপরও বাবা মার টেনশন যায় না । দেখা যায় ওটি এর বাইরে ছলছল চোখে দারিয়ে আছেন তারা । একবার আমার এক পরিচিত বন্ধুর বাবা হাসপাতালে মারা গেলেন , তাতে সেই বন্ধুর সে কি কান্না ! তাকে থামানো খুব কঠিন হয়েছিল ।

আমার মধ্যে আবেগ মনে হয় এমনিতেই কম । আমার বাবার একবার গল ব্লাডার এর অপারেশন হল । রাতেও আমি ভালমত ঘুমিয়েছিলাম কিন্তু সকাল বেলা নাস্তা করতে গিয়ে দেখি খাবার আর মুখ দিয়ে নামছে না । যখন একবারে ডাক্তার রা বললেন যে , উনি নিরাপদ তারপর ক্ষুধা লাগলো । এখন তো বাড়িতে ফোনই দেওয়া হয় না , মাঝে মাঝে বাবা মা ফোন দিয়ে খবর নেয় । কিছুদিন আগে এক বন্ধুর বিয়ে দিয়ে আসলাম তার বাবা মার অমতে । তাই মাঝে মাঝে মনে হয় আমরা যেন সত্যই যেন দিন দিন যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছি!