ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

প্রথম পর্ব লেখার পর অনেকেই অনেক ভাবে আমার কাছে জানতে চেয়েছেন, আমার তথ্যের সত্যতা কতটুকু? তাদের উত্তরে বলছি, আমার উল্লেখিত বিষয়াবলির মধ্য দু-একটা বিষয়
ছাড়া প্রায় সব কটার আজও একই পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। যে কেউ খুব সহজেই কুমিল্লার টমসনব্রীজ সংলগ্ন ইপিজেড রোডে ইবনে তাইমিয়া স্কুল এন্ড কলেজে এসে এসব ঘটনাবলি নিজ চোখে প্রত্যক্ষ করতে পারেন।

এই স্কুলে প্রতি ক্লাসে ছাত্রশিবিরের
বড় ভাইরা নিয়মিত আসে, তাদের কাজ হচ্ছে ছাত্রদের সাথে একটা ভাল সর্ম্পক করে, স্বাধীনতা-শেখ মুজিব এই সব বিষয়ে দুষ্টামির ছলে ছাত্রদের
মগজে বিকৃত ধারণা ঢুকিয়ে দেয়া। প্রায় সমস্ত শিক্ষক এবং শিবিরের বড় ভাইরা এই কাজটাই করতেন।

নবম শ্রেনী ব্যবসায় শাখায় আমাদের ধর্ম ক্লাস নিতেন
মাওলানা মোসলেহ উদ্দিন। একদিন তিনি ধর্ম ক্লাসের ফাকে বললেন, আওয়ামী লীগ বলে শেখ মুজিব নাকি জাতির পিতা-
আসলে কি কথা ঠিক? কথা ঠিক নয়। আমাদের পিতা মোট ৩ জন- ১) আদিম পিতা হযরত আদম(আঃ), ২) মুসলিম জাতির পিতা হযরত ইবরাহীম(আঃ)
এবং ৩)আমাদের প্রত্যেকের
জন্মদাতা পিতা। তা ছাডা আমাদের কোন পিতা নেই। এই কথা গুলো তিনি কয়েকবার ক্লাসের ছাত্রগুলোকে নিয়ে কোরাস করে পড়লেন।

আমাদের বাঙলা পড়াতেন আক্তার স্যার। একদিন তিনি পড়ার ফাকে বললেন, রবি ঠাকুরের গান কোনো গান হল নাকি? শুনলেই ঘুম আসে। গান হচ্ছে নজরুলের, কী জোশ্ ইসলামী গজল গুলোতে।

কিছু বিষয় ছাত্রদেরকে শিবিরের বড় ভাইরা শিখাতেন। যেমন, জাতির পিতাকে বলা “জুতার ফিঁতা”; বঙ্গবন্ধুকে বলা “ভাঙ্গা বল্টু”। কেউ এখনও এই স্কুলে গিয়ে যদি ছোট ক্লাসের কোন ছাত্রকে প্রশ্ন করেন, তোমরা জাতির পিতা আর বঙ্গবন্ধুকে কি বল? উত্তরেই আমার কথার সত্যতা টুকু খুজে পাবেন ।

আমরা কয়েকজন বন্ধু একসাথে শহরের আরেকটি স্কুলে পড়তাম। আমার বাসার কাছাকাছির জন্য আর অন্যদের হোস্টেল সুবিধার জন্য-৭ম শ্রেনীতে একসাথে এসে এই স্কুলে ভর্তি হলাম। আমি সহ ঐ সব বন্ধুরা একসাথে আগের স্কুলে থাকতে বিজয় দিবস, মাতৃভাষা দিবস এবং স্বাধীনতা দিবসে কঁপালে জাতীয় পতাকা বেধে শহীদ মিনারে ছুটে যেতাম। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের দিনে ঐ স্কুলে কাঙালী ভোজ হত, এসব অনুষ্ঠানে আমরা একসাথে মেতে উঠতাম। কিন্তু এই স্কুলে ৭ম শ্রেণীতে আসার পর অষ্টম শ্রেণীতে উঠতে উঠতেই আমার বন্ধু কয়েকজন একেবারে বদলে গেল। তারা তখন দেশ নিয়ে রাজনীতি নিয়ে খুবই সিরিয়াস হয়ে গেল। স্বাধীনতা, বিজয় তাদের কাছে অর্থহীন হতে থাকল প্রতিদিন। এই স্কুলটি কখনোই এই সব দিবস গুরুত্ব দিয়ে পালন করে না, থাকে নানা ইচ্ছাকৃত অবহেলা।

একদিন স্কুলে কোন এক কারনে ক্লাস ছুটি দিয়ে দিল তাড়াতাড়ি, আমার ঐ বন্ধুরা আমাকে স্কুল মসজিদে নিয়ে গেল একটা মিটিংয়ে এবং কয়েকজন শিবিরের বড় ভাইয়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দিল। তারা আমাকে সাদরে গ্রহন করলেন এবং বিভিন্ন উপদেশ দিতে থাকলেন এবং মাঝে মাঝে কয়েকটা প্রশ্ন করতে থাকলেন; এর মধ্য একটা প্রশ্ন হল, তোমার আব্বু কোন রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করে? আমি বললাম, আওয়ামী লীগ। তিনি মাথা নাড়িয়ে বললেন, তুমি? আমি বললাম, আমিও আওয়ামী লীগ। তিনি বললেন, ভালো। কিন্তু রাজনীতির পাশাপাশি আমাদের তো ইসলামী আন্দোলনও করতে হবে, দেশতো ক্রমশই ইহুদী-নাছাড়াদের হাতে চলে যাচ্ছে। আমি সম্মতি দিলাম। তিনি সেদিনের মত আর কিছু বললেন না, আরেক দিন কথা হবে বলে আমাকে কয়েকটি বই পড়তে দিয়ে বিদায় দিলেন।

এভাবেই প্রতিদিন একটু একটু করে শত শত স্বাধীনতা প্রেমী যুবকরা হারিয়ে যাচ্ছে জামাত-শিবিরের নষ্ট থাবায় অতল থেকে অতল গহবরের দিকে…….

(চলবে)