ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

 

গত পহেলা মে মঙ্গলবার ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায় বেলা সাড়ে ১২টায় যখন চারদিকে কর্মমুখর মানুষদের ভীড়, ঠিক তখন পূর্ব-চৌরাস্তায় এক জোড়া শিশুর চোখ তাকিয়ে আছে মায়ের মুখের দিকে। শিশুকে নিয়ে মা রাস্তা পার হচ্ছেন ডাক্তারের কাছে যাবে বলে। হঠাৎ শিশুর কান্নায় চারদিক ভারী হয়ে ওঠে।

কাছে গিয়ে ঐ শিশুর মায়ের সাথে কথা বলে জানা যায়, দুই মাস বয়সী ঐ অসুস্থ শিশুটির বুকের সমস্যা রয়েছে। এজন্য পার্শ্ববর্তী সেতাবগঞ্জ উপজেলা থেকে পীরগঞ্জ এসেছেন চিকিৎসা নেবার জন্য। সকাল ১১টায় পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কোন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ না পেয়ে ঐ মা অবশেষে ছুটে যান দিনাজপুর থেকে আসা নবজাতক ও শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ এক ডাক্তারের চেম্বারে।কিন্তু সেখানে গিয়ে জানতে পারেন ডাক্তার পীরগঞ্জ চেম্বারে আসবেন বেলা আড়াইটায়। তাই শিশুটির কান্না থামাতে না পেরে উদ্বেগে রয়েছেন মা।

এখানে এই ঘটনা বর্ণনা করার মূল উদ্দেশ্য কেবল এই একজন মায়ের উদ্বেগ প্রকাশ নয়। এটা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয় কিংবা এই চিত্র নতুন কিছু নয়। এই উদ্বেগ এই অঞ্চলের প্রায় সকল মায়েরই। মা ও শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ব্যবস্থার অভাবে চরম বিপদের সম্মুখীন হতে হয় এ অঞ্চলের নাগরিকদের।

এমন অবস্থায় মা ও শিশুর চিকিৎসার ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চান একালার মানুষ। বর্ণিত ঘটনার মতো এমন আশঙ্কাজনক সময়ে অসহায় মা ও শিশুর জন্য চান ‘মা ও শিশু চিকিৎসায় বিশেষায়িত হাসপাতাল’।