ক্যাটেগরিঃ মতামত-বিশ্লেষণ

 

একটু লক্ষ্য করলেই বুঝতে পারবেন কিভাবে চলতি বাইকগুলোতে স্টাইলিশ লুকের নামে নারী দেহের আকৃতি অবিকল ফুটিয়ে দেওয়া হয়েছে। হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি আস্তে আস্তে একটা থিম ডেভেলপ করলো যার নাম দিলো ওরা “মাচো ম্যান”। এই মাচো ম্যান হল এমন এক চিজ যারা চুলে তেলের পরিবর্তে জেল মাখবে, খোচা খোচা দাড়ি থাকবে মুখে, পরনে থাকবে এক সাইজ ছোট জ্যাকেট, সাথে ইদুরে খাওয়া জিন্স, ক্যাকড়া ম্যাকড়া দুলও থাকতে পারে কানে।

এই মাচো ম্যান ঘ্যাচ করে বাইক থামাবে, নারী কূল (অবশ্যই স্বল্পবসনা) তাকে ঘিরে থাকবে। তার গায়ের সেট ওয়েট স্প্রের ঘ্রানে পতঙ্গের মত ঝাক বেধে থাকবে কন্যারা তকে ঘিরে।
মাচো ম্যানের বাইকে যে কন্যা উঠবে, তাকে নিয়ে মাচো বাইক হাকাবে- ঘ্যাচ ঘ্যাচ ব্রেক করবে, টার্ন নিবে। ব্রেক আবার হবে “হাইড্রোলিক”, যাহার ফলে স্লপি ঢাল বেয়ে কন্যার দেহ বারবার ধাক্কা খাবে মাচো ম্যানের শরীরে। আহা,আহা…

কর্পোরেট বানিজ্যে নারী দেহের প্রসার; কি ঘৃণায় মুখে থু থু আসছে ?
আসলেও গিলে ফেলুন, কি আর করবেন? আম জনতার কিছু করতে নেই!!! আপনিও চোখ খুলে চারপাশে তাকান, এমন অনেক অসঙ্গতিই চোখে পড়বে, আকৃতিতে নিরীহ এমন অনেক কিছুই খুটিয়ে দেখুন।
আরো মজার ব্যাপার, প্রাচীনকাল থেকে গড়ে ওঠা ধর্মীও উপাসনালয়গুলোর দিকে একটু তাকিয়ে দেখুন। ষাট গম্বুজ মসজিদের গম্বুজগুলোকে নারীদেহের বক্ষের মত মনে হয় কি?

মন্দিরের মিনার থেকে হালের কর্পোরেট বিল্ডিংগুলোতেও পুরুষ লিঙ্গের ছাপ…! কোকাকোলার বোতল…? একই অবস্থা।

হালের কর্পোরেট টুইন টাওয়ার,

প্রাচীন বাংলায় অর্থ হিসেবে কড়ির প্রচলনের কথা আমরা সবাই জানি। লক্ষ করে দেখুন, কড়ির সাথে নারী যৌনাঙ্গের কি অদ্ভুত মিল। এ যেনো হাজার বছর ধরে পুরুষতান্ত্রিক সমাজে জীবনের, পণ্যের এবং অবকাঠামের সর্বক্ষেত্রে নারীকে, নারী দেহকে পণ্য হিসেবে চালান করার প্রত্যক্ষ প্রচেষ্টা।

ইতিহাসের একটা সময়ে মানুষের যৌন প্রজনন ক্ষমতার উপাসনা করা হত। কারন জমি আপনার আছে, দরকার সন্তান। যার যত সন্তান, সে তত বেশি করে জমিতে ছেলেদের কাজ করিয়ে প্রতিপত্তি লাভ করবে। এখনো গ্রামে দেখা যায়, কারো যদি সাতটা ছেলে থাকে, তবে সেই পরিবার লাঠিবাজিতে গ্রামে সবার চাইতে ক্ষমতাধর। প্রজনন ক্ষমতার উপাসনা এখন পুঁজিবাদী সমাজ ব্যবস্থায় বিলুপ্তপ্রায়। তবে সনাতন ধর্মে শিবলিঙ্গ পুজা ঐতিহাসিক সে প্রমান এখনো ধরে রেখেছে।

আর কত উদাহরন দেওয়া যায়? যে সমাজ পুরুষের মাথার চাইতে, নারীকে প্রতিপক্ষ বানিয়ে, পুরুষের শিশ্নকে বেশি করে তুলে ধরে- সেই ঘুণে ধরা সমাজ কি আপনারা চান কেউ? আমি অন্তত চাই না।
নারীদেহকে পন্য নয়, পুরুষকে নারীর প্রভু নয়, দালান কোঠা, উপাসনালয়ে নারীদেহের আকৃতি নয়- মানুষ হিসেবে নারী পুরুষের সম অধিকারের সমাজ ব্যবস্থা চাই। কেউ কি আছেন, নতুন এ পথযাত্রায় চলতে চান? কেউ কি আছেন, লিঙ্গবৈষম্য দূর করে স্রষ্টা প্রদত্ত মানুষের সর্বোচ্চ মর্যাদা নিশ্চিত করে পরিবর্তনের পথে হাটতে চান?