ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

বাংলাদেশে জামাত শিবির রাজনীতি করে কোন অধিকারে? জামাত শিবির কেন নিষিদ্ধ হচ্ছেনা। নবম সংসদ নির্বাচনে দেশের তরুন ও নবাগত ভোটাররা ভোট দিয়েছিল শেখ হাসিনার নৌকায়। উদ্দেশ্য একটাই। ঐ সব পাকিস্তানের নাজায়েজ- নাপাক সন্তান দের চিরতরে দেশ থেকে হয় বহিস্কার কর অথবা যুদ্ধ অপরাধীদের বিচার কর। কিন্তু বর্তমান মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসলেও আজও জামাত শিবির দেশে রাজনীতি করছে। শিবিরের তাণ্ডব আজও থামেনি। বিভিন্ন নাশকতা মুলক কর্মকাণ্ডে ওদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ আমাদের খুবই ভাবায়। তাছাড়া দেশের বিভন্ন বিদ্যাপীঠে শিবির আজও সক্রিয়। একমাত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া শিবিরের রাজনীতি প্রায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অব্যাহত রয়েছে।

দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে কোচিং সেন্টার এর নামে শিবির তাদের কর্মী সংগ্রহ করে থাকে। রেটিনা, ইউনি এইড, সাকসেস সহ নানা প্রতিষ্ঠান শিবির পরিচালনা করছে। দেশের ঐ সব সারমেয়গুলো আজও কেন রাজনীতি করার সাহস পায়? হাসিনা সরকার কেন তাদের বহিস্কার করছে না? তাদের রাজনৈতিক ভাবে নিষিদ্ধ করা হোক।

মগবাজারে আজহারুল কি ভাবে হুমকি দেয়? কি করে সংগ্রাম পত্রিকায় প্রতিদিন উদ্ভট আর দেশ বিদ্বেষী নিউজ বের হয়? কেন ঐ সব বদমাশ সাইদি- নিজামি- মুজাহিদ দের ফাঁসি দেওয়া হচ্ছেনা? আবার আর এক হত্যাকারী জিয়ার স্ত্রী খালেদা ঐ জামাতের সঙ্গে সখ্যতা করা শুরু করে দিয়েছে!!! এক জন মুক্তি যোদ্ধার স্ত্রী সে কিভাবে জামাতকে কাছে টেনে নেয়? খালেদা তো ওদের গাড়ীতে পতাকা উড়িয়ে দিয়েছিল। ৩০ লাখ শহীদ এর সাথে কি বেইমানী না করলেন খালেদা জিয়া। একাধিক জন্ম তারিখের খালেদা জিয়া জামাতের সঙ্গে কত সখ্যতা করবেন? খালেদা জিয়ার অতীত ইতিহাস কি? উনি কি বাংলাদেশী? ওনার পূর্ব পুরুষ দের ইতিহাস কি বলে?

যাই হোক জামাত শিবির নিষিদ্ধ হোক। জামাত যেন কোনদিন দেশে নির্বাচন করতে না পারে। জামাত শিবির নিষিদ্ধ হোক এই বাংলাদেশে।