ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

আমরা বড় ধরনের ধাঁধাঁয় পড়ে গেছি। ছোটবেলা থেকে যা শিখেছি তা কি ভুল? আমদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকগণ কি আমাদের ভুল শেখালেন নাকি বাবা মা সঠিক শিক্ষা দেয়নি? তাহলে কি আমাদের শিক্ষা সনদগুলো সবই ভুয়া?

আমাদের অর্থমন্ত্রী চার হাজার কোটি টাকার লুটপাটকে বললেন ছোট দুর্নীতি বা তেমন কোন বড় ঘটনা নয় বলে যারা এটা করেছেন তাদের ছোট্ট করে একটু বকুনি দিলেন, অপরদিকে আমদের রেলমন্ত্রী দুইশত টাকা ঘুষ খাওয়ার অপরাধে বলরামকে দিলেন এক রাম চড়।

আর আমাদের ধাঁধাঁটা এখানেই, দুই শত টাকা কি তাহলে চার হাজার কোটি টাকার চেয়ে বড় হল না? তার মানে কি এই দাঁড়াচ্ছে না যে, দুই শত টাকা ঘুষ খেয়ে বলরাম, চার হাজার কোটি টাকা লুটকারী তানভীর এর চেয়ে বড় অপরাধ করেছেন?

আর যাদের কল্যাণে এই প্রশ্নটা আমাদের সামনে লাফিয়ে পড়েছে, তারা হলেন আমাদের মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় যুগল; সবজান্তা অর্থমন্ত্রী জনাব আবুল মাল মুহিত ও সর্বত্যাগী যোগাযোগ ও রেলমন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের। তারা দুইজনই জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দ্বারা নিয়োগকৃত দুই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী।

এখন আমরা আমজনতা আছি বিপদে। কোনটা বিশ্বাস করবো, যদি জনাব ওবায়দুলের কর্মকাণ্ড আর জনাব আবুলের কথা বিশ্বাস করি তাহলে আমরা এতদিন যা শিখেছি তা ভুল হয়ে যায় । কারণ জনাব আবুলের কথায় এটা প্রমাণ হয়ে গেছে যে, বলরাম, তানভীরের চেয়েও বড় অপরাধী, আর জনাব ওবায়দুল কিন্তু তানভীরকে এখনো একটিও চড় দেননি। যার মানে দাঁড়াচ্ছে চড় খেকো বলরাম তানভীরের চেয়ে বড় অপরাধী হিসাবে প্রমানিত!

অতএব আসুন আমরা আমজনতা আমাদের এতদিনের যা কিছু অর্জিত জ্ঞান, বিদ্যা-বুদ্ধি ছুড়ে ফেলে দিয়ে একত্রে মন্ত্রী মহোদয়দের সাথে কোরাস করিঃ

চার হাজার কোটির চেয়ে দুইশত বড়
তানভীরের চেয়ে বলরাম বড়
ডাকাতের চেয়ে চোর বড়
বিদ্বান এর চেয়ে মূর্খ বড়
আর, বাঙ্গির চেয়ে বীচি বড় !!!

যে বাণী চোরা শোনেনা, শুনবেও নাঃ-
নিকট অতীতে হাওয়া ভবনের হাওয়া দেনেওলারা জনগণকে পাঙ্খা বানিয়ে সাধারণ এক নর’কে হাওয়া দিয়ে নররাজ বানাতে যেয়ে পশুরাজ বানিয়ে ফেলেছিল! বর্তমানে হাওয়া দেনেওলারা হাওয়া কিন্তু পশুরাজটি ঠিকই উঠতে বসতে টের পাচ্ছেন, আসলে তিনি নরই ছিলেন!

বর্তমানে আপনারা যারা বিভিন্ন ভবনের বাসিন্দা হয়ে মৌতে দিন গুজরান করছেন আর দেশটাকে বাঙ্গি বানিয়ে খাবলিয়ে খাচ্ছেন, অচিরেই এর মেজেজাটা টের পাবেন! অতীতে এই বাংলায় কেউই “টের” পাওয়া ব্যতিত যায়নি, আপনারাও “টের” টা পাবেন! এই বিষয়ে বাঙ্গালী জাতির অভিজ্ঞতা সর্বত্র স্বীকৃত।

…… বাজারে ডিমের দাম আর চাহিদা দুটোই বেড়ে গেছে, সবাই ডিম কিনছেন আর ঘরে ঘরে তা সিদ্ধ করছেন কিন্তু কেউই খাচ্ছেন না, কারণটা কি জিজ্ঞাসা করলে, শুধুই মুচকি হাসে!