ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

বলতে দ্বিধা নেই, ব্লগ, ব্লগার, ব্লগিং শব্দগুলো একেবারেই নতুন আমার জন্য! খুব বেশী দিন ধরে আমি এই শব্দগুলোর সাথে পরিচিত না। তবে অনেক দিন ধরেই বিডি ব্লগের লেখা পরতাম কিন্তু “ব্লগ” ব্যাপারটাকে খুব একটা খেয়াল করিনি। পড়তে পড়তেই একদিন হটাৎ করেই আমার মনে হল আমিও বোধ হয় লিখতে পারব, রীতা রায় মিঠুদির প্রোফাইলের কথাগুলো আমাকে এক্ষেত্রে উৎসাহিত করলো এবং আমি কি লিখব তা মনে মনে গুছাতে থাকলাম, প্রথমেই পড়লাম বিপদে কম্পিউটারের কি বোর্ডে বাংলা লিখতে যেয়ে, বিজয়ে লিখতে গেলে কি বোর্ডে বাংলা অক্ষর লেখা থাকতে হয় না হলে আমার মাথা ঘোরে, চোখে ঘোলা দেখি আর লেখার গতি সে তো ঢাকার ট্রাফিক জ্যামের কারণে গাড়ির গতির মতই ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে, খিস্তি খেঁউড় করতে করতে এগোনো!

আমার অফিসের ডেস্কটপের কি বোর্ডে যদিও বাংলা অক্ষর লেখা আছে, তাই বলে তো আর সেখানে সাহিত্য চর্চা করা যায় না! আর ধরা পড়লে সাটারিং খাওয়ার সমূহ সম্ভবনা! তবুও দু-চার লাইন বাংলা লিখে ফেসবুকে ট্রায়াল করতে যেয়ে দেখি বিজয়ে লেখা সেখানে এরর দেখাচ্ছে। কি করি; ব্যাপারটা শেয়ার করলাম আমাদের গ্রাফিক্স ডিজাইনার শ্যামলের সাথে ও উপদেশ দিল “দাদা, আপনি মাসুদের সাথে কথা বলুন ও এই লাইনের মাস্টার!” অতএব ফোনে মাস্টারকে ধরলাম, ও বলল, দাদা আপনার ল্যাপটপ নিয়ে আসেন আমি “অভ্র” সেট করে দেই, আমি বললাম অভ্র আবার কি? মাসুদ হাঁসতে হাঁসতে বলল, ল্যাপটপটা নিয়েই আসুন না আগে, আমি আপনাকে বাংলা লেখার “মজাটা” দেখাচ্ছি!

মাসুদ আমার ল্যাপটপে অভ্র সেট করে দেওয়ার পাশাপাশি আমাকে একটু ট্রেনিং দিয়ে বলল, দাদা এবার মজা করে লিখুন! আমি একটু চেষ্টা করেই অভ্র’র মজা পেয়ে গেলাম এবং “ইংরেজি” হরপে “বাংলা” লিখতে শুরু করলাম।

আমরা সবাই জানি প্রতিটি ক্রিয়ারই সমান প্রতিক্রিয়া আছে, ইংরেজি হরপে বাংলা লেখারও প্রতিক্রিয়া খেয়াল করলাম। ১৯৫২ সালে পাকিস্তানের জাতির জনক জিন্নাহ সাহেব বাঙ্গালীদের যখন উর্দুকে রাষ্ট্রীয় ভাষা করার কথা বলছিল তখন তার কথায় উৎসাহিত, আমাদেরই এক শ্রেণীর আতি উৎসাহী বুদ্ধিজীবী আরও এক কদম এগিয়ে “উর্দু” হরপে “বাংলা” লেখার ছবক দিচ্ছিল, যা তখন আমাদের পূর্ব পুরুষগণ তাদের বুকের রক্ত দিয়ে প্রতিরোধ করেছিল কিন্তু এখন আমরা মানে তাদের উত্তর পুরুষ-গন সেই রক্তের তৈরী ভিতের উপর দাঁড়িয়ে হাসতে হাসতে বেইমানি করছি! আর মজা করে অভ্র সফটওয়ারে তথা ফোনেটিকের নামে “ইংরেজি” হরপে “বাংলা” লিখছি, একবারও কিন্তু কেউই সেই সব কথা মনেও করছিনা।

যাক যুগের সাথে সবই পাল্টায়! আমরাও পাল্টাচ্ছি! এইসব ভাবলে এখন আর চলেনা, তাই না?

আমি যে বিষয় নিয়ে লিখবো বলে ঠিক করেছিলাম তা ঘুরে গেছে! আমার মনে এখন শুধু একটাই প্রশ্ন, “তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়ালো”?