ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

 

একজন বলীর পাঁঠা খুঁজে বের করতে আমরা খুবই দক্ষ। এই যেমন এখন চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতার জন্য সবাই আমরা মেয়র মঞ্জুর সাহেবকে দোষারোপ করছি।

আসলে কি সে একাই এর জন্য দায়ী? আমরা সু এবং কু – নাগরিকেরা কি সবাই ধোঁয়া তুলসী পাতা? আমরা কি ড্রেন, খাল, নালা, নদীগুলো দখল করে বাড়ী, ঘর, ফ্যাক্টরি বানিয়ে জল নেমে যাওয়ার রাস্তাগুলো দখল করে রাখিনি? আমরা কি গৃহস্থালির ময়লা জেনেশুনে বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়া নালা-খালে ফেলে বোঝাই করে ফেলছি না? নতুন বাড়ী বানানোর ইট, সুরকী, বালি কি আমরা রাস্তায় রেখে নিজ নিজ বাড়ী বানাচ্ছি না, যা বৃষ্টির জলে ধুয়ে মহল্লার নালাগুলো বন্ধ করে দিচ্ছে?

আবার অপরদিকে, কিছুদিন পরে যখন সিটি কর্পোরেশন সেই দখলি জায়গা গুলো উচ্ছেদ করতে যাবে, তখন কি আমরা সবাই মিলে বাঁধা হয়ে দাঁড়াবো না? জেনেশুনেও আমরা কি আবারো ময়লা আবর্জনা নালা নর্দমাতে ফেলে ভরে ফেলবো না? বাড়ী বানানোর উপাদানগুলো রাস্তায় রেখে ড্রেন বন্ধ করবো না বা নতুন করে নালা, নর্দমা, খাল, নদী দখল করবো না?

আমার ধারণা- কিছুদিনের মধ্যেই আমরা দলমত নির্বিশেষে আজকের জলাবদ্ধতার কথা বেমালুম ভুলে যাব এবং সিটি কর্পোরেশন যদি তখন দখল হয়ে যাওয়া নালা, ডোবা,নদীগুলো উদ্ধার করতে শুরু করে; আমি নিশ্চিত, এই আমরাই দলবেঁধে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে তা রুখে দেব। পাশাপাশি এই মেয়র সাহেবেরই মন্ডুপাত করবো নাগরিক সাধারণের সম্পত্তিতে অযাচিত হস্তক্ষেপ করে ক্ষতি সাধনের জন্য এবং মেয়র সাহেবকে ভয় দেখাবো ভোটের এবং গন শক্তিমত্তার!

এসব কিছুই আমাদের নজরে পড়ে না। নজর পড়ে একজন সরকার প্রধানের উপর বা একজন মেয়রের উপর। আমরা সবসময় নিজের দোষ ঢেকে রেখে এমন একজনকে খুঁজে বের করি, যাকে অতি সহজেই বলীর পাঁঠা বানানো যায়!

আর তাই, মৌসুমি বৃষ্টি জনিত এখনকার এই জলবদ্ধতার জন্য আমরা সবাই মিলে মেয়র মঞ্জুর সাহেবকে বলীর পাঁঠা বানিয়েছি এবং আগামীকাল নিশ্চিতভাবেই আর একজনকে বানাবো!

তবু একবারের জন্যও নিজেদের দোষত্রুটি গুলো খুঁজে দেখবো না !!!

২৪/০৬/২০১৪, ১২.৩০ দুপুর