ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

ভাগ্নে বলিল, মামা তোমার কথাই ঠিক!

আমি বললাম, কেন কি হয়েছে?

উত্তরে সে বলিল, না মানে, তুমি বলেছিলে না, বাঙ্গালী ঝাড়ে বংশে বেঈমান? আমি সেদিন তোমার কথাটা বিশ্বাস করিনি! আজ করলাম।

আমি পাল্টা জিগাইলাম, হটাৎ এমন কি ঘটনা ঘটলো যে, তুঁই আমার কথায় বিশ্বাস আনলি?

সে উত্তেজিত হয়ে বলল, কেন তুমি জান না? এ কে খন্দকার সাহেব কি বলেছে?

আমি বললাম, কি বলেছে?

সে বলেছে, বঙ্গবন্ধু নাকি ৭ই মার্চের ভাষণের শেষে “জয় পাকিস্তান” বলেছিলেন!

আমি বললাম, তো কি হয়েছে? সে বললেই হয়ে গেল? সেকি একাই সেদিন এটা শুনেছিল? আর বঙ্গবন্ধু যদি সত্যই এটা বলতো, তাহলে কি এই ভাষণের রেকর্ড এতদিন তুঁই-আমি শুনতাম না? আমার তো ধারনা গত ৪২ বছর ধরে এই ভাষণ ঘরে ঘরে বাজানো হত, শুনতে বাধ্য করা হত। চাই তো বিটিভিতে দুবেলা সময় করে এটা প্রচার করা হত ৭৫ পরবর্তী সরকারগুলোর আমলে! যা এখন, মাথা ঠাণ্ডা করে নিজ কাজে মন দে!

না মামা, আমি ওনার কথা বিশ্বাস করিনি, আমি অবাক হয়েছি খন্দকার সাহেবের মিথ্যা বলার ঢং দেখে, তার নিমক হারামি দেখে! বেঈমানি দেখে!

আমি ভাগ্নের মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে দিতে বললাম, টেনশন নিস না, এরা এমনই হয়!

আচ্ছা, একটা ধাঁধার উত্তর দে তো দেখি- পারিস কিনা? বল তো, খন্দকার সাহেবরা কবে বঙ্গবন্ধু তথা এই বাংলার সাথে বেঈমানি করেনি?

স্বীকারোক্তিঃ আমি জনাব এ কে খন্দকারের স্মৃতি কথা; আই মিন সদ্য লেখা বইখানা পড়িনি। তবে প্রিয় কিছু মানুষের ফেসবুক স্ট্যাটাস ও পত্রিকার খবর পড়ে যা জানার জেনে গেছি, যা বোঝার বুঝে নিয়েছি! আর বাকিটুকুর জন্য অপেক্ষা করছি !!!

০৫/০৯/২০১৪, দুপুর ২.০০ টা