ক্যাটেগরিঃ ব্যক্তিত্ব

 

আজ নিউজে সর্বজন শ্রদ্ধেয় বিজ্ঞানী ও আমার প্রিয় মানুষ Stephen Hawking – এর অফিসিয়াল পেজ দেখে তাতে লাইক দেওয়ার মানসে ইতিউতি করে খুঁজে দেখি নিউজটাতে পেজটার লিংক নেই। ফেসবুক থেকে খুঁজে দেখি ওনার নামের অন্য পেজ আসে। অগত্যা গুগলেই যেতে হল।

এটা আমার জীবনে লাইক দেওয়া সেরা পেজ! আমার মত ফালতু মানুষের জীবনে ওনার চেয়ে আর কোন গুরুত্বপূর্ণ মানুষ আসবে না; যাকে আমি হৃদয় থেকে শ্রদ্ধা করি, অনুসরণ করি! আমার কাছে উনি এক জীবন্ত কিংবদন্তী। আমি, আমার জীবনকালে নিউটন, আইনস্টাইন, রবি ঠাকুর বা বঙ্গবন্ধুকে দেখি নাই কিন্তু হকিং-কে দেখেছি! – এই ভাবনা নিয়ে গর্ববোধ করি।

ছেলেবেলায় শরতের ‘শ্রীকান্ত’ পড়ে; সেই যে তার অনুসারী হয়েছিলাম- তারপর থেকে যৌবন পর্যন্ত শুধুই একটা রাজলক্ষ্মীর খোঁজে আলে-ডালে লাফিয়ে বেড়াতাম। সেসময়গুলিতে শুধুই ভাবতাম, জীবনে এমন একখান ভালবাসমু যে, জীবনটাকে এক্কেবারে ফার্দা-ফাই কইরা দিমু, রাজলক্ষ্মী– শ্রীকান্ত বানাইয়া ছাইড়া দিমু!

তার অনেকদিন পর, ‘A Brief History of Time’ পড়ে মনোভাব পালটাতে শুরু করলো, দৃষ্টি খুলতে শুরু করলো, নিজেকে পালটাতে শুরু করলাম।
এখন তো পুড়াই শরত আদর্শদের উল্টোদিকে, আবেগকে গুল্লি মেরে ভ্যাগাবন্ডামী ছেড়ে বাস্তববাদী সুকান্ত। শ্রীকান্ত হওয়ার শখ মিটে গেছে বহু আগেই!

Stephen Hawking, I salute you Sir! You make the differences, what man can do !!!

২৫/১০/২০১৪ রাতঃ ১০.১৯