ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

 

আমেরিকা আসলে অনেকগুলো নীতি নিয়ে একসাথে চলে- যা একে অপরের সাথে সাংঘর্ষিক। ওরা মুখে যা বলে তা আসল না। আবার যা মনে রাখে তাও মেলে না আসলের সাথে; মানে যা তারা করে। এই যেমন গুয়েতামো-বে কারাগারে বন্দি নির্যাতন, আমাদের স্বাধীনতায় বাঁধাদান! অথচ বাক স্বাধীনতা আর মানবতা নিয়ে এরা মুখে ফেনা তুলে ফেলছে বিশ্বজুড়ে।

ওরা বেসিক্যালি “যখন যেমন; তখন তেমন” আর “নিজের লাভ সবার আগে” ভিত্তিতে চলে। বন্ধু-শত্রুতেও কোন বাছ-বিচার নেই ওদের। এই যেমন- বিশ্বজুড়ে ফোনে- মোবাইলে আড়িপাতাটা; যা থেকে তার বন্ধু রাষ্ট্র ব্রিটেন, জার্মানিও রক্ষা পায়নি, আওতার বাইরে থাকেনি জার্মান চ্যান্সেলরের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনও! তবে, আমেরিকা কিছু দোসর রাখে সবসময়, লগে লগে !

এটা গেল আমেরিকার গুষ্টি উদ্ধার-

এবার আসি নিজেদের দিকে-

এই আমেরিকা যখন বন্ধুবেশে আমাদের পিছনে দাঁড়িয়ে পাছায় ঠাস করে লাথি মারে, তখন আমরা খুশীতে গদগদ হয়ে বলি, আহা এত সুন্দর লাত্থি জীবনেও খাই নাই, ভাই! আরও দেন! আবার সেই আমেরিকাই শত্রুবেশে যখন সামনে থেকে আমাদেরকে সপাটে লাত্থি মারে; তখন এই আমরাই চিল্লাইয়া কই, মিডল ষ্ট্যাম্পে লাত্থি মানি না! মানবো না! অথচ দুটাই লাত্থি!

আর সেটা বুঝে; না বুঝে আমরা বাঙালীরা সমানে লাফাই! সময়ে অসময়ে ওইদেশকে গাইলাই আর সুযোগ পাইলেই সেই দেশের দূতাবাসে যেয়ে ভিসার লাইনে দাঁড়াই! বিনা শরমে!

সম্পদে না হোক আচরণে বহুত মিল আমাদের !!!

অফটপিকঃ কিছু মিন করে লিখি নাই!

১৫/১২/২০১৪