ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

খবরে জানলাম, ২০১৬ সালে জাতিসংঘে নতুন মহাসচিব নিয়োগ দেওয়া হবে। গত ৭০ বছর ধরে এই সংগঠনে সবসময় পুরুষরাই মহাসচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। অর্থাৎ পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সংগঠনে একবারও কোন নারীকে এই পদে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এতে করে একধরণের লিঙ্গ বৈষম্য করা হয়েছে; নারীকে অবমাননা করা হয়েছে।

যারা বিশ্বব্যাপী শান্তি স্থাপনে কাজ করছেন, মানুষে মানুষে বৈষম্য দূরীকরণে দৃঢ়কল্প; তারা কিভাবে এই বৈষম্য করলেন তা অনেকেরই মাথায় আসে না। তাই এই বৈষম্য রুখতে নারী অধিকার কর্মীরা এবার একতাবদ্ধ হয়েছেন। একজন নারী মহাসচিব নিয়োগ দিতে জাতিরাষ্ট্রগুলোকে চাপ প্রয়োগ করতে চাচ্ছেন তারা। ‘ইক্যুয়ালিটি নাউ’ নামক অনলাইন ভিত্তিক একটা সামাজিক সাইটে এর পক্ষে প্রচারণা চালানো হচ্ছে বর্তমানে।

এই বিষয়ে আমি আমার একটা ব্যক্তিগত মত উপস্থাপন করতে চাই-

এই পদে একজন নারী প্রার্থী হিসেবে, আমি আমাদের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ও দুইবারের বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সবচেয়ে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে মনে করছি। তাই ওনাকে এই পদে নির্বাচিত করা হোক।

বিবেচ্য বিষয় সমূহঃ

একজন গণতান্ত্রিক নেত্রী হিসেবে তিনি তার কমিটমেন্ট এই বাংলাদেশে ইতিমধ্যেই প্রমাণ করেছেন। কূটনীতিতেও দেখিয়েছেন সাফল্য। মধ্যপ্রাচ্যসহ পৃথিবীর বহু দেশের সাথে তার আছে ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক সম্পর্ক; আছে ভাল সম্পর্ক আমেরিকা তথা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথেও। তাই আমি মনে করি, মধ্যপ্রাচ্যের চলমান যুদ্ধাবস্থা স্তিমিত করতে তিনি ভাল ভূমিকা রাখতে পারবেন। থামাতে পারবেন আমেরিকার যেখানে সেখানে অযাচিত হস্তক্ষেপ ও ড্রোন হামলাও। এক টেবিলে বসিয়ে ঝামেলা মেটাতে পারবেন সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যকার। মাত্র এক ভিজিটেই থামাতে পারবেন পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও তালেবানদের মধ্যকার চলমান সংঘাতও।

তাই আমি মনে করি, জাতিসংঘের মহাসচিব পদে বিশ্বে তিনিই এ মুহূর্তে ‘সবচেয়ে যোগ্য নারী প্রার্থী’ হতে পারেন; হতে পারেন আল্টিমেট চয়েস ফর অল পাওয়ারফুল এন্ড উয়িক নেশনস আফটার কনসিডারেশন অফ অল আসপেক্ট।

(So, I would like to say that at present Mrs. Zia will be the right woman candidate for the post of General Secretary to the United Nations after considering all aspects. I also believe that she will be the ultimate choice for all of first worlds as well as least developing countries and Middle East.)

যদিও খবরে আরও জানলাম, এবার তারা পূর্ব ইউরোপ থেকে একজনকে নিয়োগ দিবে। আমি এই নিয়মকে বা নির্বাচন পদ্ধতিকে অগ্রহণযোগ্য বলে মনে; যা কোনভাবেই গণতান্ত্রিক নর্মস হতে পারে না।

(As UN led allies have been criticizing our 10th National Assembly Election which was held on 5 January 2014 even though it was absolutely correct according to our Constitution. So, as a Bangladeshi citizen, I have the right to criticize the electoral procedure of UN’s General Secretary Nomination as well as the election.)

তাই বলছি কি, জাতিসংঘে এবার যদি নারী মহাসচিবই নিয়োগ পান; তাহলে খালেদা জিয়া কেন নয়? যিনি হবেন বান কি মুনের উত্তরসূরি।

মোটোঃ বাঙালির জয় হোক!

২৪/০৪/২০১৫ বিকালঃ ২.০৩, আপডেটঃ ২৫/০৪/২০১৫ সকাল

সম্পাদনাঃ ব্লগার কলকে বাবা।