ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

 

রক্তের কণিকাগুলোর কাজ কি?

ধারণা করি- হার্ট পাম্পের ফলে রক্তের সাথে মিশে যাওয়া অক্সিজেন কণাগুলোকে শরীরের কোষে কোষে পৌঁছে দেওয়াই এদের কাজ। এছাড়াও এরা আরও অনেক কাজ করে থাকে যেমন শরীরের কোণে কোণে, মগজে, চোখে খাদ্য উপাদানগুলো পৌঁছে দেয়। এমনি অসুস্থ জায়গাগুলোতে ঔষধও পৌঁছে দেয়।

আচ্ছা! আমাদের ট্রাকগুলোর কাজ কি?

যারা জানেন না তাদের জন্য বলছি- এগুলো দেশের গো গ্রাম থেকে পণ্য শহর ও বিদেশমুখী করে; করে বিদেশে থেকে আসা পণ্য দেশের মধ্যে বণ্টন। এই যে আমরা আমদানি রফতানি করি যার মানে হলো আমরা কোটি কোটি টন পণ্য প্রতিবছর আনা নেওয়া করি বা বিলি বণ্টন করি। কিন্তু জানি কি এগুলোর বেশির ভাগ করা হয় ট্রাকের মাধ্যমে আর এই ট্রাক যারা চালায় তাদের আমরা ট্রাক ড্রাইভার বলি।

আমরা কি জানি রক্তের এই কণিকা কারা? আই মিন এই ট্রাক ড্রাইভার কারা? তারা কি খায়? কোথায় ঘুমায়? কত ঘণ্টা ডিউটি করে? কিভাবে তারা মরে? কি ভাষায় এদের সাথে কথা বলা হয়? তাদের পরিবার কিভাবে চলে? কোন মোটিভেশন আছে কিনা?

না আমরা জানি না! কারণ আমারা জানতে চাই না! আমরা চাই আমাদের ডাইনিং টেবিলের কলাটা যেন টাটকা থাকে। ব্যাংকের একাউন্টগুলো যেন ফরেন রেমিটেন্সে ভরে ওঠে! এর বাইরে বেশী জানার দরকার কি?

আসুন দেখে নেওয়া যাক আমদানি রফতানি কাজে নিয়োজিত একটা কাভার্ড ভ্যানের ড্রাইভারের কেবিনটা যা তাদের দিন-রাতের কাজ ও ঘুমানোর জন্য ব্যবহৃত হয়।

Truck Inside

বাকিটা একটু অবসরে চিন্তা করি-

মোটোঃ রক্তে চর্বি জমে যাওয়া থেকে সাবধান হওয়া দরকার। শুধু পেট্রোল বোমায় পুড়ে ট্রাক ড্রাইভাররা মারা গেলেই আহ! উঃ! করবেন আর বাকী সময়টা অলস অবসরে শুয়ে থাকবেন তা হওয়াটা কি ঠিক?

হার্ট এটাক আছে না? আই মিন রাস্তার পাশে উল্টে যাওয়া, মুখোমুখি সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়া! বা আপনার দামী চকচকে কার’টার উপর দিয়ে চলে যাওয়া! যাকে আপনি, আমি রাগ করে যমদূত বলে ডাকি!

কিন্তু দায়িত্ব কি এড়াতে পারি?