ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

জন্ম ১৯৮৬ সালের ২ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার পূর্বপাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত বণিক পরিবারে। বাবা নিতাই পদ বণিকের ও মা কানন রাণী বণিকের প্রথম সন্তান হলেও জন্মটা হয় জমজ। পৈত্রিক পেশা হিসেবে চিকিৎসা সেবা ও পারিবারের অভিভাবকদের লেখালেখির আগ্রহ আমাকেও লিখতে বিশেষভাবে অনুপ্রাণিত করেছে। উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে পড়ারসময়ই লেখালেখিতে হাতেকড়ি। এর মধ্যে অর্জিত হয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সরকারি গুরুদয়াল কলেজ হতে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী। ছাত্রাবস্থাতেই সম্পৃক্ত হই আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের স্বেচ্ছাসেবামূলক ও স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণা প্রকল্পের মাঠ পর্যায়ের কাজে। সেখান থেকে অনাকাঙ্খিতভাবেই পেশাগত জীবনের ভীত রচনা । একে একে স্বল্প সময়ের মধ্যেই অর্জিত হয়েছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিশেষ করে হাওরাঞ্চলে স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রকল্পে কাজ করার কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির সাথে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করার মধ্য দিয়ে সুযোগ হয়েছে পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোর স্বাস্থ্য সমস্যা প্রত্যক্ষ করার অনন্য সুযোগ। ব্যবসা শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থী হয়েও স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন প্রকল্পে একে একে কাজ করেছি আইসিডিডিআর’বি, পিএসটিসি, বিএসএমএমইউ, এফআইবি-স্পেন, এলএমআলএফ ,  জিতা বিডি, ম্যাপসি বাংলাদেশ এ।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে যে স্বাস্থ্য ও সামাজিক সমস্যাগুলোর অব্যবস্থাপনা, অসঙ্গতিগুলো পরিলক্ষিত হয়েছে, সেগুলোই আবার বিবেকের তাড়নায় লিখে চলেছি অব্যাহতভাবে। দেশের জনপ্রিয় ও শীর্ষস্থানীয় জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয়, অনলাইন পত্রিকার সম্পাদকীয় পাতায়, নাগরিক সাংবাদিকতার ব্লগ, আন্তর্জাতিক সংস্থার নিউজ লেটারসহ অসংখ্যস্থানে স্থানে ঠাঁই পেয়েছে নিজের সৃজনশীল মতামত ও ভাবনাগুলো। উন্নয়নকর্মী হিসেবে কাজের পাশাপাশি নিভৃতে চালিয়ে যাচ্ছি সাংবাদিকতা। দীর্ঘদিন কাজ করেছি আঞ্চলিক দৈনিক ও শীর্ষস্থানীয় অনলাইন পত্রিকায়। এখনো সম্পৃক্ত আছি একটি শীর্ষস্থানীয় অনলাইন পত্রিকায়। সাংবাদিকতায় ডিপ্লোমা ও বিভিন্ন বুনিয়াদী প্রশিক্ষণও গ্রহণ করেছি। বর্তমানে পেশাগত সমৃদ্ধি ও ব্যক্তিগত তাগিদেই জনস্বাস্থ্য বিষয়ে স্নাতকোত্তর কোর্সে ইউনিভারর্সিটি অব সাউথ এশিয়া তে অধ্যয়নরত। মা ও শিশুস্বাস্থ্য সম্পর্কিত সচেতনতা এবং গবেষণামূলক প্রকল্পে কাজ করতে গিয়ে উপলব্ধি করেছি এ সংক্রান্ত বিষয়ে সাধারণ মানুষের জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা ও অজ্ঞতা।

পেশাগত উদ্দেশ্য :

——————–

লেখনি শক্তিকে লাগিয়ে কাজে সামাজিক সমস্যা সম্পর্কে জনসাধারণকে অবহিত করা ও সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সম্ভাব্য সমাধানের পথ সম্পর্কে সম্যক ধারণা দেয়া। এর মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক লক্ষ্য অর্জনের জন্য যুগোপযোগী বিষয়ে সুচিন্তিত মতামত প্রকাশের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখা। পাশাপাশি নিজের লেখনি প্রতিভাকে আরো বিকশিত করার মাধ্যমে একজন সক্রিয় উন্নয়ন ও গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে পেশাগত উৎকর্ষ সাধন করা।

পেশাগত অনুকথা :

———————–

লেখালেখির অভ্যাস নিতান্তই যেন মনের তাগিদে। কিন্তু এ বিষয়ে নিজেকে একটু সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে অংশগ্রহণ করেছি কিছু পেশাগত কিছু প্রশিক্ষণ ও কর্মশালায়  । সামাজিক সমস্যা নিয়ে দীর্ঘ পাঁচ (০৫) বছরেরও অধিক সময় ধরে আঞ্চলিক/ জাতীয় সামাজিক ইস্যুতে লেখার প্রয়াস অব্যাহত রেখেছি। যা বিভিন্ন জাতীয়/ আন্তর্জাতিক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানের বিশেষ প্রকাশনা, মাসিক নিউজ লেটারে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া দেশের শীর্ষ স্থানীয় অধিকাংশ দৈনিক পত্রিকার প্রিন্ট ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে উপ-সম্পাদকীয়, চিঠিপত্র, পাঠকের ভাবনা কলামে প্রায় দুই (০২) শতাধিক লেখা প্রকাশিত হয়েছে। তবে আগ্রহ ও মানবিক তাগিদের এ অনন্য প্রয়াসকে স্থায়ী পেশাগত রূপ দেয়ার মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক সম্পৃক্ততা প্রত্যাশী।

প্রশিক্ষণ :

————

১. ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কর্তৃক দিনব্যাপী ‘তথ্য সংগ্রহ ও যোগাযোগ’ বিষয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছি।

২. বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব জার্নালিজম এন্ড ইলেকট্রনিক মিডিয়া (বিজেম) থেকে এক (০১) বছর মেয়াদী ‘ডিপ্লোমা-ইন-জার্নালিজম (দূরশিক্ষণ)’কোর্স সম্পন্ন করেছি।

৩. গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কর্তৃক আয়োজিত পাঁচ (০৫) দিনব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ সাফল্যের সাথে সম্পন্ন করেছি।

৪. এমসিসি লিঃ, ডি. নেট ও পিএসটিসি’র যৌথ উদ্যোগে ‘নাগরিক সাংবাদিকতা’ বিষয়ে দিনব্যাপী কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছি।

অভিজ্ঞতা :

————–

১. কিশোরগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক ‘আজকের সারাদিন’ পত্রিকায় ‘স্টাফ রিপোর্টার’ হিসেবে এপ্রিল ২০০৫ইং হতে ডিসেম্বর ২০১০ইং পর্যন্ত কাজ করেছি।

২. ঢাকা থেকে প্রচারিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘এবি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কম’ এ ‘জেলা প্রতিনিধি’ হিসেবে কর্মরত ছিলাম ও বর্তমানে ‘ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি’ হিসেবে সম্পৃক্ত আছি।

 

 

সুমিত বণিক, উন্নয়নকর্মী ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক

ই-মেইল: sumitbanikktd.guc@gmail.com