ক্যাটেগরিঃ পাঠাগার

হাতে এলো বহু প্রতিক্ষিত নগর নাব্য লেখক শ্রদ্ধেয় নিতাই বাবু’র কল্যাণে। সোমবার দুপুরে একটি মুঠোফোনে কল এলো।

– হ্যালো, আপনি সুমন বলছেন?

-হ্যাঁ, আমি সুমন বলছি।

– আমি সুন্দরবন কুরিয়ার সিলেট জিন্দাবাজার ব্রাঞ্চ হতে বলছি, আপনার একটি বই এসেছে নারায়নগঞ্জ হতে, আপনি এসে নিয়ে যেতে হবে।

– আমি এখনই আসছি।

এরমধ্যে কল দিলেন শ্রদ্ধেয় নিতাই দাদা, জানালাম বইয়ের কথা। নিতাই দাদা বললেন হাতে পেয়ে জানাতে। আর ইচ্ছে হলো ব্লগে লিখে জানাব, নিতাই দাদাকে সারপ্রাইজ কৃতজ্ঞতা দেয়ার জন্যে।

এই স্বনামধন্য ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের  জন্মলগ্ন ২০১১ সালে । আর ‘নগর নাব্য’ সংকলন প্রথম প্রকাশ হয় ২০১২ সালে । সে বছর ২৬ জন ব্লগার/লেখকদের লেখা নিয়ে প্রকাশ হয় ব্লগ সংকলন ‘নগর নাব্য-২০১২’তারই ধারাবাহিকতায় পর্যায়ক্রমে সপ্তম বছরে জাতীয় বই মেলায় প্রকাশিত ‘নগর নাব্য- চলচ্চিত্র চালচিত্র” স্থান করে নেয় বিপিএল প্রকাশনায়।

বাংলাদেশের একমাত্র অনলাইন মাধ্যম ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর’র ব্লগার বা নাগরিক সাংবাদিকগনের লেখার ওপর ভিত্তি করে নগর নাব্য প্রকাশিত হয়। লেখক সবাইকে জানাই অভিনন্দন, যাদের লেখা স্থান পেয়েছে ‘নগর নাব্য- চলচ্চিত্র চালচিত্র’ -তে; এদের ছাড়াও সকল লেখকের জন্যে রইল কৃতজ্ঞতা, নিরন্তর শুভেচ্ছা । সকল ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এর প্ল্যাটফর্ম একটি যুগপথ স্থান করে দিয়েছে নাগরিক সাংবাদিকদের, সে জন্যে সংশ্লিষ্ঠ সকলের প্রতি জানাই অসীম কৃতজ্ঞতা।

‘নগর নাব্য- চলচ্চিত্র চালচিত্র’ চলচিত্র নির্মাতা থেকে শুরু করে, তথ্যমন্ত্রণালয়, সংস্কৃতিমন্ত্রণালয়, চলচিত্র সমালোচক/বিশ্লেষক, চলচিত্রের মান নিয়ন্ত্রক সংশ্লিষ্ঠ সকল প্রতিষ্ঠান এবং চলচিত্র সংশ্লিষ্ঠ সকল ব্যক্তির রেফারেন্স বুক হিসেবে দিক নির্দেশনা, চলচিত্রের সেকাল-একাল, চলচিত্র কেনো মানসম্মত নয় ইত্যাদি প্রশ্নের উত্তর খোঁজার সহজ সমাধান পাবেন।

এবারের বই মেলায় (২০১৮ সালে) প্রকাশিত বই সংখ্যা ৪৫৯১টি বইতে এভাবে দেশের চলচ্চিত্র নিয়ে গভীর বিশ্লেষণ করা হয়েছে কিনা তা জানা নেই। আর এই চিন্তা-ভাবনার জন্যে কৃতজ্ঞ শফিক মিতুল এর কাছে, তিনি চলচ্চিত্র বিষয়ক নগর নাব্যের প্রস্তাবনা করার জন্যে।

এবারের (২০১৮ সালে) বইমেলায় প্রকাশিত ৪৫৯১টি বইয়ের মধ্যে মানসম্মত বই সংখ্যা ৪৮৮টি!  তাহলে এবারে বইমেলায় ‘মানহীন’ বই ৪৫৯১ – ৪৮৮ = ৪৮০৩ টি! এসব নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে। আমি না-হয় সেই প্রশ্নে না-ই গেলাম। তবে দেশের আর্থিক উন্নয়নে চলচ্চিত্র শিল্প একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আমাদের দেশে সেই শিল্প বিলুপ্তির দিকে। হলগুলোর জীর্ণ দশা ও বিলুপ্তির কারণ ওঠে এসেছে ‘নগর নাব্য- চলচ্চিত্র চালচিত্র’ – তে। এবার সরকার উদ্যোগ গ্রহণে প্রয়োজন যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা, তবেই টিকে থাকবে চলচ্চিত্র শিল্প।

’চলচ্চিত্র চালচিত্র- নগর নাব্য’ এর সাথে ২টা লেখা দিয়ে আমি যুক্ত হলাম এবারের অমর একুশে বইমেলা-২০১৮’র শেষের দিকে । এর আগে একটি লেখা দিয়ে যুক্ত হয়ে ছিলাম ২০১৭ সালে নগর নাব্য- মেয়র সমীপেষু’তে । এই বইটিতে আমার লেখাকে স্থান করে দেবার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। উক্ত বইটিতে সম্মানিত আরও যাদের লেখা রয়েছে তাদেরকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি আবারও। শফিক মিতুল ভাই ও আইরিন সুলতানা আপুকে বিশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি ।

সবাই একটি করে বই কিনবেন বলে আশা করছি। আমার নিজের বইটিও আমি শ্রদ্ধেয় দাদা নিতাই বাবু নিয়েছেন, টাকা দিয়ে কিনেছেন, কুরিয়ার করে আমাকে পাঠিয়েছেন, বিনম্র শ্রদ্ধা ও কৃৃতজ্ঞ দাদার কাছে ।

সিলেট অধ্যাত্বিক পূণ্যভূমি বলে এখানে বিদেশি ও বাংলাদেশের সকল রাজনৈতিক, সচিব, চলচ্চিত্র নির্মাতা, চলচিত্র গবেষক, সকল ধরনের লোক প্রায় সময় আসেন।  লেখকদের প্রাণের নগর নাব্য- চলচ্চিত্র চালচিত্র সংকলনটি আশাকরি গত বছরের মতো এবারও দেশি-বিদেশি সকল উচ্চ পদস্থদের  কাছে পৌঁছানোর প্রত্যয় থাকলো। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার  পাঠকদের কাছে পৌঁছালে ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এর উদ্যোগে  প্রকাশিত নগর নাব্য – চলচ্চিত্র চালচিত্র আরো সফলতা আনবে বলে বিশ্বাস রাখি। 

নগর নাব্য – চলচ্চিত্র চালচিত্র বিপিএল থেকে প্রকাশিত এবং ফেসবুকে বিপিএল প্রকাশনা পেইজে অর্ডার করার জন্য যোগাযোগ করা যাবে।  বই কিনুন, বই পড়ুন, জগতে আসল ভালো বন্ধু বই।