ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

প্রযুক্তির কল্যাণে বিশ্ববাসী অনেক সুফল পাচ্ছে। সেই সুফল ডানা ছড়িয়েছে সংবাদমাধ্যমেও। দেশে এখন মুদ্রিত এবং অনলাইন- এই দুই ধরনের সংবাদপত্র রয়েছে। যুগের বিবর্তনে মুদ্রিত সংবাদপত্রের সার্কুলেশন কমে আসছে, অন্যদিকে ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার অনলাইন সংবাদপত্রের রয়েছে বহুবিধ সুবিধা।

অনলাইন সংবাদপত্রের একটি বিশেষ সুবিধা হল, এখানে সংবাদ খুব দ্রুত আপডেট করা যায়। পাঠক তাৎক্ষণিক সংবাদ জানতে পারে। অন্যদিকে মুদ্রিত সংবাদপত্রের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট একটি সময়ের পরে আর সর্বশেষ খবর আপডেট করা সম্ভব হয় না। আপডেট পাওয়ার জন্য পাঠককে আরো একদিন অপেক্ষা করতে হয়। এ কারণেই অনলাইন সংবাদপত্র এখন বেশি জনপ্রিয়।

 

 

প্রিন্ট বা মুদ্রিত সংবাদপত্রের সার্কুলেশন অপেক্ষা অনলাইন সংবাদপত্রের পাঠক প্রায় ১০ গুণ বেশি। যেখানে মুদ্রিত সকল সংবাদপত্রের মোট সার্কুলেশনের চেয়ে শুধু একটি অনলাইন সংবাদপত্রের পাঠক সংখ্যাও দ্বিগুণ! তাই ধারণা করা হয়, এই প্রেক্ষাপটে অনলাইন সংবাদ মাধ্যম মুদ্রিত সংবাদপত্রের কাছে হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

অনলাইন সংবাদপত্রের সুবিধা হল- আপনি যেখানেই যান এটি বহন করতে পারেন। আপনি আপনার স্মার্টফোনটি ব্যবহার করতে পারেন। স্মার্টফোনে চার্জ শেষ হলেও চিন্তা নেই, এর ব্যাটারি ব্যাকআপ তো রয়েছে। এই কারণটি মুদ্রিত সংবাদপত্র ব্যবহার থেকে সরিয়ে নিচ্ছে পাঠকদের।

 

 

পাঠক মুদ্রিত সংবাদপত্রের তুলনায় অনলাইনে সংবাদ আরও বিস্তারিতভাবে পড়তে পারেন। আপনি অল্প সময়ে খুব সহজেই পুরোনো যেকোন সংবাদ পড়তে পারেন আর্কাইভ থেকে। এই সুবিধা পাওয়া যায় না মুদ্রিত সংবাদপত্রে। অনলাইন সংবাদপত্রের সরাসরি কোন ব্যয় নেই, শুধু ইন্টারনেট খরচে পাওয়া যায় সব অনলাইন মাধ্যমের খবরা-খবর। অনলাইন সংবাদ সহজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা সম্ভব। তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে আপনি সার্বক্ষণিক সংবাদ আপডেট পেয়ে যাচ্ছেন। একবিংশ শতাব্দীর যোগাযোগ ব্যবস্থা একটি নতুন ধারার যোগাযোগ মাধ্যম শাসিত হয়ে উঠছে, যাকে ‘নিউ মিডিয়া’ নামকরণ করা হয়েছে। প্রযুক্তি কি তবে প্রিন্ট বা মুদ্রিত সংবাদপত্র গুটিয়ে নেয়ার পথ তৈরি করছে?

 

পূর্ব প্রকাশিত