ক্যাটেগরিঃ চিন্তা-দর্শন

“সময় বদলে যায় আর তার সাথে সাথে বদলায় মানুষ।” কথাটা আমাদের সবার কাছেই অনেক পরিচিত। আচ্ছা, আমার একটা প্রশ্ন আছে, আসলে মানুষ বদলায় বলতে কি বুঝায়? এটা কি ভালো? যদি ভালো হয়েই থাকে তবে সবকিছু বদলাচ্ছে না কেন?

যুগের পর যুগ ধরে আমাদের মধ্যে অনেক পরিবর্তন এসেছে। পরিবর্তন হয়েছে আবেগের। পরিবর্তন হয়েছে চিন্তাধারার। আমাদের আগের প্রজন্ম থেকে তো আমরা অনেক ‘উন্নত চিন্তার’ অধিকারী। এ ‘উন্নত চিন্তাকে’ অবশ্য আমি অসুস্থ চিন্তা বলতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করব। কথাটা একটু অবাক করার মতোই। এবার কথাটার অর্থ একটু পরিষ্কার করে বলি…

আমাদের দেশটা আজ স্বাধীন অনেক আন্দোলনের পর। এই এত আন্দোলন, এত রক্তপাত কিসের জন্য হয়েছে? আসলে যারা আন্দোলন করেছে তারা কি বোকা ছিলেন নাকি? তারা কি জানতেন না তারা সেসব আন্দোলনে নিজেদের প্রাণ হারাতে পারেন। খুব বেশি আগের না ১৯৭১ সালের কথাই ধরে নেই। ‘৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছেন তাদের বোকা বলাটা ভুল হবে কি? কারণ, তারা অস্ত্র ধরতে না জেনেও যুদ্ধ করেছেন। কি  দরকার ছিল তাদের। আচ্ছা, ধরে নিলাম তারা সবাই শিক্ষিত ছিলেন না বিধায় তাদের যা বুঝানো হয়েছে তারা তাই বুঝেছেন। তবে বুদ্ধিজীবীদের কি বলব। তারা কেন তাদের সার্টিফিকেট নিয়ে বিদেশে চলে যাননি? কেন দেশে বসে শহীদ হয়েছেন?

এক কথায় বলতে গেলে আমরা তাদের থেকে অনেক অনেক বুদ্ধিমান। এই যে আমরা আগে নিজের লাভ খুঁজি। লাভ না থাকলে আমরা সে কাজ করি না। অন্যকে নিয়ে চিন্তা করার তো আমাদের সময়ই নেই। আর বড় কোনো সার্টিফিকেট অর্জন করতে পারলে কে থাকে এ দেশে!

আসলেই আমরা অনেক বুদ্ধিমান। আমাদের কাছে দেশের থেকে নিজের মূল্য অনেক বেশি। আর আমাদের আগের বোকা প্রজন্ম নিজের আগে দেশকে নিয়ে ভেবেছে। আমরা স্বপ্ন দেখি নিজেদের নিয়ে। তবে তারা! তারা স্বপ্ন দেখেছেন আমাদের নিয়ে। তারা স্বপ্ন দেখেছেন আমাদের দ্বারা গড়ে উঠবে সোনার বাংলাদেশ। তাই দ্বিতীয়বার চিন্তা না করে আমাদের জন্য উৎসর্গ করে দিয়েছেন নিজেদের।

আসলে, হয়তো আসলেই আমরা তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারতাম। যদি না ছোটবেলায় বাংলার স্বাধীন হওয়ার আসল ইতিহাস জানতে পারতাম। যদি না কেউ তখন হাতটা ধরে চোখে আঙুল দিয়ে তাদের স্বপ্ন আমাদের সামনে তুলে ধরতে পারত। এখনো খুব দেরি হয়নি। চাইলে সব ঠিক হতে পারে।

তবে সমস্যা একটাই আবার যে আমাদের বদলাতে হবে। আমরা প্রায়ই একটা কথা শুনে থাকি, কথাটা হল, “বাঙালির দিবসের অভাব নেই।” সবার আগে বদলাতে হবে এই চিন্তা ধারা। আরো শোনা যায় “পহেলা বৈশাখ হিন্দুদের কালচার।” “২১শে ফেব্রুয়ারি, ২৬ শে মার্চ, ১৬ই ডিসেম্বর শহীদ মিনারে কিংবা স্মৃতিসৌধ গিয়ে কি হবে, টিভিতেই কত দেখা যায়।”

পহেলা বৈশাখ যে বাঙালির সংস্কৃতি। আর ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২৬শে মার্চ, ১৬ই ডিসেম্বর এগুলোতো আমাদের জাতীয় দিবস। এই দিনগুলো কি টেলিভিশনে রক কনসার্ট দেখার জন্য? নিশ্চয়ই না। তবে চলুন না সবাই কষ্ট করে আবার বদলে যাই। আমরা বদলে গেলেই তো বদলে যাবে দেশ। সৃষ্টি হবে নতুন ইতিহাস। সূচনা হবে নতুন অধ্যায়ের।