ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

নিবন্ধন বাঁচাতে অবশেষে নিজেদের দলীয় গঠনতন্ত্রে ব্যাপক সংশোধন এনেছে স্বাধীনতাযুদ্ধে বিরোধীতাকারী ধর্মব্যবসায়ী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জামাতে ইসলামী। নতুন সংশোধনীর মাধ্যমে ধর্মব্যবসায়ী দলটি গঠনতন্ত্র থেকে ‘আল্লাহ প্রদত্ত ও রসূল প্রদর্শিত ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থা’র কথা বাদ দিয়ে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার কথা বলেছে। একই সঙ্গে নতুন গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ‘ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থা’র পরিবর্তে ‘গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ন্যায় ও ইনসাফভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা’র কথা বলেছে দলটি।

এছাড়া ‘আল্লাহ ব্যতীত কাহাকেও সয়ংসম্পুর্ণ বিধানদাতা ও আইন প্রণেতা মানিয়া লইবে না এবং আল্লাহ্র আনুগত্য ও তাঁহার দেওয়া আইন পালনের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত নয় এমন সকল আনুগত্য মানিয়া লইতে অস্বীকার করিবে’ এ নীতিটিও গঠনতন্ত্র থেকে ছুড়ে ফেলেছে ধর্মব্যবসায়ী মওদুদীবাদী জামাতীরা।

ধর্মব্যবসায়ী মওদুদীবাদী জামাতের সংশোধিত গঠনতন্ত্রে এগুলো ছাড়াও বেশকিছু ভাষাগত ও তত্ত্বগত পরিবর্তন আনা হয়েছে। এর অন্যতম হচ্ছে- ‘সমাজের সর্বস্তরে খোদাভীরু নেতৃত্ব কায়েমের চেষ্টা’র বদলে ‘চরিত্রবান নেতৃত্ব’ কথাটি সংযোজন।

ইসলামের শাসন কায়েমের নামে ইসলাম ধর্মকে উদ্দেশ্যপুর্ণভাবে ব্যবহার করায় এবং বাংলাদেশ সরকারের সংবিধান ও গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও ) পরিপন্থী হওয়ায় নির্বাচন কমিশন মওদুদীবাদী জামাতকে গঠনতন্ত্র করতে বলে। সে মতে, মোট ৮টি ধারা পরিবর্তন বা বিলুপ্ত করে রোববার বিকেলে এই সংশোধিত গঠনতন্ত্র নির্বাচন কমিশনে জমা দেয় মওদুদীবাদী জামাত।
এখন ঝগড়া লেগেছে নাম নিয়ে আকীকা দিয়ে কি নাম রাখা হবে,জামায়াতে ইহুদী না জামায়াতে মৌদুদী?