ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

অতি সম্প্রতি মাহি বি চৌধুরি অনলাইন ভিত্তিক কি একটা সংগঠন করেছেন, নাম শুনছি `ব্লু ব্যান্ড কল’ এই ধরণের কিছু। কাগজে পড়েছি, এই সংগঠন ঢাকায় জনসভা করতে চাইলে পুলিশি বাঁধার কারণে তা সম্ভব হয়নি। কাগজে, ব্লগে মাহির এই নতুন দল বা সংগঠন নিয়ে দেখি বেশ বিতর্ক পক্ষে-বিপক্ষে। আমার এই লেখাটা মোটেই সেই বিতর্কে যোগ দিবে না। মাহির সংগঠনে যে কেউ যোগ দিতে পারেন। বিরোধীতাও করেত পারেন। কিন্তু মাহির ব্যাপারে আমার মনে একটা প্রশ্ন থেকে গেছে। সেই প্রশ্নটাই এখানে রাখবো এই লেখাটার মাধ্যমে।

সবার মনে আছে নিশ্চয়, মাহি বি চৌধুরী `সাবাশ বাংলাদেশ’ নামের একটি অনুষ্ঠান বানিয়েছিলেন যা বেসরকারী টেলিভিশন এটিএন বাংলা প্রচার করেছিল ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপির প্রচারণা হিসেবে। সেই অনুষ্ঠান সবাই দেখেছে। দেখেছে কী ভয়ংকর সাম্প্রদায়িক উস্কানি ছাড়ানো হয়েছিল মাহির `সাবাশ বাংলাদেশ’ থেকে। এক হাতে কোরান আর এক হাতে গীতা নিয়ে বলা হয়েছিল, আপনি কি কোরানের শাসন চান নাকি গীতার শাসন চান? মাহির `সাবাশ বাংলাদেশ’ অসংখ্য সংখ্যালঘুর ঘুম হারাম করে দিয়েছিল সেদিন। এবং উস্কে দিয়েছিল সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠিকে যার প্রমাণ পাই আমরা ২০০১ নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা থেকে। পূর্ণিমার কথা নিশ্চয় মানুষের বিবেক ভুলে যায়নি এতো অল্পদিনে। মাহিরা ক্ষমতায় গিয়েছিলেন তা যত সাম্প্রদায়িক পথেই হোক না কেন কী আসে যায়! কিন্তু আপসোস, মাত্র কয়েকটা দিনের ব্যবধানে বাপ-ছেলে রাস্তায় তারই দলের হাতে পঁচা ডিমের বৃষ্টির মধ্যে পড়তে হয়েছিল। নতুন দল করাই ছিল তাদের অপরাধ। তারপর রাজনৈতিক কত পালা বদলই ঘটে গেলো বাংলাদেশের রাজনীতিতে। সর্বশেষ বোধহয় `ব্লু ব্যান্ড কল’? কিন্তু আমার প্রশ্ন, যিনি `সাবাশ বাংলাদেশ’ এর মত অনুষ্ঠান অতিতে বানাতে পারেন, ঐ রকম সাম্প্রদায়িক উচ্চারণ করতে পারেন দায়িত্ব-জ্ঞানহীনের মত- তার থেকে কী আর আশা করতে পারি আমরা? কি নতুন রাজনীতি তিনি আমাদের দিতে পারেন? এটাও কি আর দশটা বাংলাদেশের গতানুগতিক রাজনৈতিক ধান্দা? সম্ভব তার জন্য আমাদের কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।