ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

আমি কিভাবে প্রেসিডেন্ট হবো, আর একটা দেশের প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা কতটুকু সে সম্পর্কেও কোন ধারণা নেই আমার। আমি শুধুই একজন নাগরিক। অবশ্য নিজেকে আধুনিক নাগরিক দাবী করতে পারি। আমি একজন তরুণ, স্বশিক্ষিত, পেশাদার প্রোগ্রামার। আর কোন যোগ্যতা নেই। সমস্যার বিষয় কি চলে আমার মাথায়, হয়তো আমাদের মাথায়।

১। প্রথম এবং প্রধান সমস্যা জনসংখ্যা।
একটা সন্তানের বেশি নেয়া নিষিদ্ধ ঘোষণা করতাম। দ্বিতীয় সন্তানের জন্য বর্তমান মুদ্রামান অনুযায়ী ২০ লক্ষ টাকা ব্যাংক এ রাখা বাধ্যতামূলক, যাতে তাকে শিক্ষিত করে নিজের পায়ে দাঁড় করাবার চিন্তা করতে না হয়। তৃতীয় সন্তানের জন্য বাধ্যতামূলক রাখতে হবে ৫০ লক্ষ টাকা। এতে কি হইতো?

২০ বছরে বেকারত্ব, অভাব, আবাসন, খাদ্যাভাব সমস্যা কমে যেত ৫০% এর মত। ৫০ বছরে বাইরের দেশ থেকে জনশক্তি আমদানি করতে হতো।
যাদের টাকা নাই, তারা কী করতো? 

তারা একটা সন্তান কে মানুষ বানাবার চেষ্টা করতো। মুখ দিয়াছেন যিনি, আহার দিবেন তিনি টাইপ চিন্তাভাবনা প্রাথমিক শিক্ষার স্তরেই মানুষের মাথা থেকে সরিয়ে দেয়া হতো।

২।শক্তি বা এনার্জি

প্রতিটা দালান, বাসা অফিসের ছাদ, কার্নিশে বাধ্যতামূলক সোলার প্যানেল লাগানো হতো। পুরো না হোক, অন্তত ঐ দালানের চাহিদার ৫০% বিদ্যুৎ শক্তি দালান কে নিজেই পূরণ করতে হতো। সুন্দরবন কেটে, কয়লা পুড়িয়ে শক্তি উৎপাদন করতে হতো না। রিনিউয়েবল এনার্জীতে ম্যাসিভ ইনভেস্ট করা হতো। এটার রিসার্চেও।

৩। নিয়োগ, ভর্তি সহ প্রতিটা ক্ষেত্র আক্ষরিক অর্থেই ডিজিটাল করে ফেলতাম।

সবকিছু একটা বা একাধিক সুপার কম্পিউটার সার্ভারের অধীনে থাকতো। কোন দুর্নীতির সুযোগ থাকতো না। কে এপ্লাই করেছে তা নিয়োগদাতা জানতেন না, তার কাজ এপ্লিকেশন চেক করে হ্যাঁ বা না বলা। সেই তথ্য আবার এনক্রিপটেড হয়ে সার্ভারে যেত, সেখান থেকে আবেদনকারীর কাছে।

৪। রাস্তাঘাট, যানজট সমস্যা জনসংখ্যা সমস্যা কমলে ঠিকই কমে যাবে।
হ্যাঁ, প্রাইভেট গাড়ির উপরে ট্যাক্স আরো ভয়াবহ হারে বাড়িয়ে দিতাম। সবার জন্য থাকতো পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সার্ভিস। বাজে যোগাযোগ ব্যবস্থা একটা দেশের উন্নতির মূল অন্তরায় গুলোর একটা। কোথাও কোন রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হলে এক সপ্তাহ বা এক মাসের মধ্যে তা ঠিক না করা হলে দায়িত্বে থাকা লোকেদের শাস্তির মুখোমুখি করা হতো।

৫। সব থেকে মেজর চেঞ্জ আনতাম শিক্ষাখাতে।
মুখস্ত বিদ্যাকে না বলুন নীতিতে চলতো দেশ। বুয়েটে পড়ে কেউ উকিল আর মেডিকেলে পড়ে কেউ ব্যাংক ম্যানেজার হতো না। শিক্ষাখাত হতো ম্যাক্সিমাম কারিগরী। কাজ শেখানো হইতো, ছড়া কবিতা উপন্যাস না। একটা বাচ্চাকে একেবারে ছোট থেকেই নৈতিকতার শিক্ষা দেয়া হইতো। তাকে শেখানো হতো ড্রাগ, ইভটিজিং, বা অন্যান্য অপরাধ কেনো খারাপ, সেগুলোর পরিণতি কি হতে পারে। প্রতিটা ছেলেমেয়ের সেলফ ডীফেন্স, বেসিক কম্পিউটার নলেজ, বেসিক ফার্স্ট এইড মেডিকেল নলেজ নেয়া বাধ্যতামূলক করা হইতো।

খাতা কলম কাগজের ব্যবহার কমিয়ে ফেলা হতো। নোটবুক বা টাচপ্যাডে শিক্ষা দেয়া হতো।

৬। গণতন্ত্রেই চেঞ্জ আনতাম।
ভোটার হবার অধিকার ১৮ বছর না, একটা নির্দিষ্ট শিক্ষিত লেভেল হতে হতো। উচ্চ শিক্ষিত, জ্ঞানী যারা বোঝেন, তারা ঠিক করতেন কে হবে পরবর্তী পরিচালক। বর্তমান গণতন্ত্রে ভোট টাকা দিয়ে কেনা যায়। যারা নির্বাচনে দাঁড়াতেন, তাদের-

পুরো জীবনের ডাটাবেজ সবার সামনে থাকতো। কে জীবনে কি করেছেন, কোথায় কতটাকা মেরেছেন, বা কোন অপরাধ করেছেন কিনা জীবনে সব নির্বাচক দের সামনে থাকতো।

তাদের নীতিগত আদর্শ, ক্যারিয়ার, আগে ক্ষমতায় থেকে থাকলে সে সময়ের সফলতা, ব্যার্থতা সব সামনে থাকতো।

৭। দেশে সব থেকে উচ্চ বেতনে কাজ করতেন বিজ্ঞানী এবং শিক্ষকরা।

ছাত্র রাজনীতি তো বাদই, আমজনতার রাজনীতিও বন্ধ। সরকারী ক্ষেত্রগুলো হতো আক্ষরিক অর্থেই চাকরী। যোগ্যতার ভিত্তিতে মন্ত্রী হউ, সমর্থনের ভিত্তিতে না।

৮। ঘুষ কে না বলা হতো।
অভিযোগ, আবেদন সব হতো অনলাইনে। ঘুষ গ্রহণের শাস্তি ১০ বা অধিক বছরের সশ্রম জেল। চাকরী তো যেতই, এমন কি প্রত্যেকের যে ডিজিটাল ন্যাশনাল আইডি কার্ড থাকতো, তাতেও লাল দাগ পড়তো। ৩ টা দাগ পড়লে তাকে নির্বাসিত করা যেতে পারে, অথবা মৃত্যুদণ্ড।

৯। হ্যাঁ, মৃত্যুদণ্ড উঠিয়ে দেয়া হতো না।
শুধুমাত্র ধর্ষণ, খুন এবং মানি লন্ডারিং এর শাস্তি হতো ইলেক্ট্রিক চেয়ারের মৃত্যুদণ্ড। অপরাধ প্রমান হলে কোন আপিল করার সু্যোগ নেই। রাষ্টপতি না, সয়ং স্রষ্টারও তাকে ক্ষমা করার অধিকার নাই।

১০। দেশের প্রতিটা নাগরিকের অধিকার হতো সমান।
কারো জন্য রাস্তা আটকে রাখা হতো না। কোন রাজনৈতিক সভা সমাবেশ হতো না, প্রতিটা বিচার যত দ্রুত সম্ভব করে ফেলা হইতো। দেশের আইন-শৃংখলা বাহিনীর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ হতো পর্বত সমান অপরাধ, তাদের শাস্তি হতো ভয়াবহ।

আমি শুধু ভাবছিলাম, মাথায় এলো। সিরিয়াস ভাবে নেয়ার কিছু নেই। আপনার কি মনে হয়, এগুলো হলে কি কি ভুল হতো, কি কি সমস্যা হতো? আপনার কি মনে হয়, আরো কি কি করা উচিত? মন্তব্য পেলে খুশি হবো।

ক্ষমতা কি আমাকেও নষ্ট করে দিত? আমিও কি ক্ষমতা পেলে নিজেকে ভুলে যেতাম? আর ভুলে গেলে কেউ কি মনে করিয়ে দিত না?