ক্যাটেগরিঃ প্রবাস কথন

 

পৃথিবীর সব শিশুর অভিব্যক্তি সম্ভবত একই রকম। আরব এই শিশুটি আমার প্রতিবেশী। এর নাম ইভান। এরা পুরো পরিবার ইরাকের মসুল থেকে পালিয়ে এরবিলে চলে এসেছে, ইসলামিক স্টেট এর ভয়ে। ইভান আমাদের খুব ভালো বন্ধু।  প্রতিদিন বিকেলে আমাদের জন্য অপেক্ষা করে, আমরা অফিস থেকে ফিরে ওর সাথে আড্ডা দিব বলে। ইভানকে কয়েক দিন ধরে দেখতে পাচ্ছি না। হঠাৎ কাল বিকেলে আমাকে দেখে দৌড়াতে দৌড়াতে কাছে এসেই বিস্তারিত বর্ণনা দেয়া শুরু করলো।

সে যা বলল তার একটি বর্ণও আমি বুঝতে পারলাম না কিন্তু সে তার অভিব্যক্তি দিয়ে পুরো ঘটনা আমাকে বোঝাতে সক্ষম হলো।  যা বুঝতে পারলাম তা হলো – `তোমরা` আমাকে গত কয়েক দিন দেখতে পাওনি কারণ আমি অসুস্থ ছিলাম। অনেক জ্বর হয়েছিল। আমি হাসপাতালে ছিলাম। আমাকে ডাক্তার ইনজেকশন দিয়েছিল (অথবা আমার হাত থেকে রক্ত নিয়েছিল)। আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম, হাহাহাহা’!  কী অসাধারণ অভিব্যক্তি!

শিশুরা সম্ভবত স্নেহ, ভালবাসা খুব ভালো বুঝতে পারে, সে জানে যে তাকে কয়েকদিন না দেখলে আমরা চিন্তা করব আর তাই হাসপাতাল থেকে ফিরেই ঘরের জানালা দিয়ে আমাদের দেখা মাত্র ছুটে এসেছে তার খবর দিতে।  শিশুরা জানে ভালবাসার মূল্য দিতে যা আমরা বড়রা কোনদিনও শিখতে পারব না।

ক্ষোভ হয়, দুঃখ হয়, রাগ হয় যখন দেখি কিছু মানুষরূপী অমানুষের কারণে এই সব নিষ্পাপ শিশুদের উদ্বাস্তু হতে হয়, পিতৃহীন হতে হয়।