ক্যাটেগরিঃ সাম্প্রতিক

 

পিস টিভি বন্ধ করা হয়েছে এই খবরটা পড়েই দিনের শুরু হলো আজ।  কাজের চাপে টেলিভিশন দেখা খুব একটা হয়ে ওঠে না।  আর এই পর্যন্ত্য পিস টিভি বড়জোর গোটা দশেক বার দেখার সুযোগ হয়েছে।  পিস টিভিতে কী দেখায় বা কী মতবাদ প্রচার করে তা সম্মন্ধে আমার তেমন কোনো ধারণা নাই।  শুধু জানি জনাব জাকির নায়েক নামের একজন ডাক্তার তথা ইসলামিক চিন্তাবিদ তথা ইসলামের প্রচারক মূলত ইসলামিক কথাবার্তাই তাঁর পরিচালিত চ্যানেলটিতে প্রচার করে থাকেন। তিনি জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে, নাকি পক্ষে সে সম্পর্কে আমার কোনো মতামত নেই, যেহেতু আমি নিজের চোখে দেখিনি বা নিজের কানে শুনিনি।

যদি তিনি জঙ্গিবাদের পক্ষের লোক না হয়ে থাকেন তবে, শুধু মাত্র কোনো জঙ্গি তাঁকে ফলো করার অপরাধে তাঁকে শাস্তি বা হেনস্তা করার পক্ষপাতী আমি নই। আমার দেশে অনেক চোর, বাটপার, খুনি, দুর্নীতিবাজ, ধর্ষক আছেন যাঁরা বারাক ওবামাকে ফলো করেন, অমিতাভ বচ্চনকে ফলো করেন, টম ক্রজকে ফলো করেন, তবে কী এদের অপরাধে উপরোক্ত ব্যক্তিবর্গকে নিষিদ্ধ করতে হবে? নিশ্চয় না।

আর যদি সত্যি সত্যিই পিস টিভি জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষক হয়ে থাকে তাহলে নিষিদ্ধ ঘোষণার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। এরপরও একটা ছোট্ট প্রশ্ন মাথায় ঘুর ঘুর করতে থাকে। আমাদের তথ্য মন্ত্রণালয় যত দ্রুততার সাথে অত্যন্ত জনপ্রিয় একটা চ্যানেলকে বন্ধ ঘোষণা করতে পেরেছেন তা যথেষ্ট সাহসীকতার এবং প্রশংসার দাবি রাখে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে আমার দেশের অনেক সাধারণ, বুদ্ধিজীবী, জ্ঞানী, গুণী, চালাক, বেকুব, নালায়েক মানুষ ভারতীয় কিছু চ্যানেল বন্ধ করার দাবী জানিয়ে আসছেন বিভিন্ন যৌক্তিক কারণে। এই টিভি চ্যানেলগুলো অস্বাভাবিক, অশ্লীল, কুরুচিপূর্ণ, রুচি বহির্ভুত অনুষ্ঠান প্রচার করে থাকে যা মূলত আমাদের ধর্মীয়, সামাজিক, পারিবারিক এবং সাংস্কৃতিক মূল্যবোধের সাথে কোনো ভাবেই চলে না।  এই সব টিভি চ্যানেলগুলোর কারণে সামাজিক এবং পারিবারিক অবক্ষয় যে কী হারে বেড়েছে তা স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল আসার আগে আর পরের অবস্থাটা দেখলেই বোঝা যায়।

আমাদের ছেলেমেয়েদের এমনকী মায়েদেরও বর্তমানের পোশাক আশাক, কথাবার্তা ও চালচলনে যে প্রভাব ঐ সব অনুষ্ঠান থেকে এসেছে তাতে মনে হয় না আমরা কোনোকালে বাঙালী ছিলাম। এমনকী বিশেষত কিশোরী বা যুবতী মেয়েগুলো আজকাল হিন্দিতে কথা বলতে পারলে বেশ গর্ব বোধ করে বলে মনে হয়। এই চর্চা এখন শহর থেকে ছাড়িয়ে গ্রামে গঞ্জে পর্যন্ত্য ছড়িয়ে গেছে।  আজকাল দেখি আধুনিক বাংলাদেশি শালীরা তাদের দুলাভাইকে `হাই জিজ’ বলতেই বেশ স্বাচ্ছন্দ বোধ করে। এই চ্যানেল এর সিরিয়াল গুলোর নায়িকার নামে বানানো পোশাক কিনতে না পারার কারণে অনেক আবেগী কন্যারা আত্বহত্যার পথও বেছে নেন। আমাদের চিরচেনা পরিবারগুলো আজ নিজেদের মধ্যে বিভেদের দেয়াল তুলছে।

পারিবারিক সম্প্রীতি ও শান্তি বিনষ্টকারী ভারতের এই চ্যানেলগুলো সহ ওদের প্রায় সকল চ্যানেল আমার দেশে সম্প্রচার হচ্ছে অথচ আমার দেশের একটা চ্যানেলও ভারতে দেখানো হয় না। আমাদের লজ্জাবোধও বোধ হয় শেষ হয়ে গেছে।

আশাকরি আমার দেশের পরিবারগুলোর স্বার্থে, আমার ভবিষ্যৎ সন্তানদের স্বার্থে, আমার সংস্কৃতির স্বার্থে, আমার দেশের অর্থনীতির স্বার্থে মাননীয় তথ্য মন্ত্রী এই বিষয়ে দ্রুত স্বিদ্ধান্ত নেবেন যেমন নিয়েছেন পীস টিভির ক্ষেত্রে।