ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

`সুলাইমানিয়া’ – কুর্দিস্তানের সাংস্কৃতিক রাজধানী। অসম্ভব সুন্দর একটি শহর। পরিচ্ছন্ন, শান্ত নিরিবিলি লোকালয়। বাদশাহ সুলাইমান পাশার নামানুসারে এই শহরের নামকরণ সুলাইমানিয়া।  অনেক প্রাচীন নিদর্শন সমৃদ্ধ শহর এটি। এরবিল থেকে সড়ক পথে মাত্র তিন ঘন্টা লাগে সুলাইমানিয়া পৌঁছুতে।  পাহাড় ঘেরা রাস্তা দিয়ে  শীতের সকালে যখন সুলাইমানিয়া যাচ্ছি কিংবা সন্ধের সময় যখন ফিরে আসছি ভালোলাগার এক আবেশ ছড়িয়ে গেলো।  দেখার মতো অনেক কিছু আছে এই শহরে।  সময় করে একদিন আবার যেতে হবে সুলাইমানিয়া শহরকে ভালোভাবে জানতে। মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় তোলা ছবিগুলো এই শহরের সৌন্দর্য ঠিক ভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারলো না। ক্যামেরা না নিয়ে যাওয়ার কষ্ট রয়ে গেলো।

দুই পাহাড়ের মাঝ দিয়ে এরবিল সুলাইমানিয়া হাইওয়ে

পাহাড়ের ঢালে সুদৃশ্য বাড়ি

পাহাড়ের ঢালে সুদৃশ্য বাড়ি

হাইওয়ের পাশে গাছের সারি

হাইওয়ের পাশে গাছের সারি

শহরের প্রাণকেন্দ্রে `গ্র্যান্ড মিলিনিয়াম হোটেল'। উপরের গোলাকার বস্তুটি একটি ঘূর্ণায়মান রেস্তোঁরা।

শহরের প্রাণকেন্দ্রে `গ্র্যান্ড মিলিনিয়াম হোটেল’। উপরের গোলাকার বস্তুটি একটি ঘূর্ণায়মান রেস্তোঁরা

ae916764acef0e352c31497e8f9a7e3a

রাস্তার ধারে দেয়াল ছবিতে সুলাইমানিয়ার ইতিহাস

`দুক্কান নহর' বা দুক্কান নদী।

`দুক্কান নহর’ বা দুক্কান নদী – ০১

`দুক্কান নহর' বা দুক্কান নদী।

`দুক্কান নহর’ বা দুক্কান নদী ০২

সুলাইমানিয়ার গোধূলী - ০১

সুলাইমানিয়ার গোধূলী – ০১

সুলাইমানিয়ার গোধূলী - ০২

সুলাইমানিয়ার গোধূলী – ০২

সুযোগ পেলে সুলাইমানিয়া নিয়ে বিস্তারিত লেখার ইচ্ছা আছে।  চেষ্টাই আছি কিভাবে বৃহস্পতিবারে একটি অফিসিয়াল মিটিং এর আয়োজন করা যায়, যাতে করে উইকেন্ডে সুলাইমানিয়া ঘুরে দেখতে পারি।