ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

`দুহক’ ইরকি কুর্দিস্তানের বাণিজ্যিক রাজধানী। কুর্দিস্তানের রাজধানী এরবিল থেকে প্রায় ১৬০ কিলোমিটার স্থল পথের দূরত্ব।  গাড়িতে চড়ে দুহক পৌঁছুতে  আড়াই ঘন্টা মতো লাগে। এই শহরকে পাহাড়ের শহর বা প্রকৃতির রাণী বললেও ভুল হবে না। পুরো দুহক জুড়ে শুধুই পাহাড় আর পাহাড় আর আছে গাছপালা।  এরবিল দুহক হাইওয়ে ধরে গেলে দুইপাশে চোখে পড়বে পাহাড়, গ্রাম আর গাছপালা। এদের গ্রামের বাড়িঘর গুলো আমাদের গ্রামের মতো নয়। সব বাড়িই ডুপ্লেক্স টাইপের পাকা দালান। হাইওয়ে ধরে যেতে যেতে বিভিন্ন রোড সাইন চোখে পরে, এর মধ্যে একটা নতুন সাইন দেখলাম এবারই প্রথম। ভেড়ার ছবি সম্বলিত রোড সাইন। মানে হচ্ছে গাড়ি আস্তে চালান সামনে মেষ চারণ ভূমি। রাখাল মেষের পাল চড়িয়ে বেড়াচ্ছে।

দুহক যেতে অনেকগুলো চেক পয়েন্ট পার হতে হয়।  কারণ এই একই রাস্তায় মুসল যাবার পথ এবং মুসল যেহেতু এখন পুরোপুরি ISIS মুক্ত হয়নি তার কারণে এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা।  দুহক মোট সাতটি জিলা নিয়ে গঠিত এর মধ্যে `যাখো’ জিলার সাথে হচ্ছে তুরস্কের বর্ডার।  এখানকার অধিবাসীদের বেশিরভাগই হচ্ছে কুর্দ এবং আসিরিয়ান। অল্প কিছু ইয়াজিদি এবং আর্মেনিয়ান জনগোষ্ঠীরও বাস পরিলক্ষিত হয়।

দুহকের মানুষগুলো যেহেতু ব্যবসায়ী তাই এদের টাকা পয়সা মোটামুটি বেশ ভালো তবে দেখে বোঝার উপায় নেই। খুবই সাধাসিধে জীবন যাপন। আমার সহকর্মী, একজনকে দেখিয়ে বললেন এই লোক নাকি মাল্টি মিলিয়ন ডলারের মালিক। দুহক শহরে ৩ টা বড়বড় বহুতল মার্কেট আর নানা রকম ব্যবসায়। অথচ লোকটাকে দেখে আমি প্রথমে মনে করেছিলাম কোনো একজন দোকানদার হবে হয়তো।

যাই হোক, অফিসের কাজে একদিনের জন্য দুহক এসেছিলাম। কাজ শেষে শহরটা একটু ঘুরে দেখার সাধ হলো। এখানে প্রচন্ড ঠান্ডা। স্নোফল হয়েছে। পাহাড়ের গায়ে তুষারের সাদা রং পাহাড়ে উঠার আগ্রহকে বাড়িয়ে দিলো। সুন্দর রাস্তা পাহাড়ের মাঝ দিয়ে চলে গেছে শেষ মাথা পর্যন্ত। ঘন কুয়াশার কারণে একেবারে শিখরে উঠতে পারলাম না। মেঘগুলো যেন হাত দিয়ে ছোঁয়া যাবে।  সূর্য মামা বোধ হয়  আজকে বিশ্রামে আছেন, সারাদিনে একবারও সাক্ষাত দিলেন না।

শীতে কাঁপতে কাঁপতে পাঠকদের কথা মনে করে কয়েকটি ছবি তুললাম। ছবিগুলো হয়তো ভালো লাগবে।

%e0%a6%86%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b6-%e0%a6%aa%e0%a6%be%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a7%9c-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%97%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a4-%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%b2%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a6%bf

আকাশ, পাহাড়, দিগন্ত মিলেমিশে একাকার

%e0%a6%86%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b6%e0%a7%87-%e0%a6%b9%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%a8-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a7%87-%e0%a6%aa%e0%a6%be%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a7%9c-%e0%a6%98%e0%a7%81

আকাশে হেলান দিয়ে পাহাড় ঘুমায় ঐ

%e0%a6%aa%e0%a6%a5%e0%a7%87-%e0%a6%af%e0%a7%87%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%af%e0%a7%87%e0%a6%a4%e0%a7%87

পথে যেতে যেতে

%e0%a6%aa%e0%a6%be%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a7%9c-%e0%a6%86%e0%a6%b0-%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%98%e0%a7%87%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b2%e0%a7%81%e0%a6%9f%e0%a7%8b%e0%a6%aa%e0%a7%81%e0%a6%9f

পাহাড় আর মেঘেদের লুটোপুটি খেলা

%e0%a6%a7%e0%a6%b0%e0%a6%a3%e0%a7%80%e0%a6%b0-%e0%a6%97%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%80%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a7%9f-%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%98%e0%a7%87%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%9a%e0%a7%81

ধরণীর গ্রীবায় মেঘেদের চুমু

%e0%a6%aa%e0%a7%87%e0%a6%9f-%e0%a6%aa%e0%a7%82%e0%a6%9c%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a6%e0%a6%bf-%e0%a6%86%e0%a7%9f%e0%a7%8b%e0%a6%9c%e0%a6%a8

পেট পূজার কুর্দি আয়োজন

%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%98%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%86%e0%a7%9c%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a7%87-%e0%a6%b8%e0%a7%82%e0%a6%af%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%bf-%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%b0

মেঘের আড়ালে সূয্যি মামার বাড়ি

%e0%a6%b8%e0%a7%80%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%97%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a8

সীমান্তে দিগন্তের হাতছানি

%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%aa%e0%a6%bf%e0%a6%b2-%e0%a6%aa%e0%a6%a5-%e0%a6%ac%e0%a7%87%e0%a7%9f%e0%a7%87-%e0%a6%b6%e0%a6%bf%e0%a6%96%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%86

স্বর্পিল পথ বেয়ে শিখরের আহবানে