ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে দেশ। উন্নয়নের তীব্রস্রোতে ভেসে যাচ্ছে মানুষগুলোও। এদেশের উন্নয়নের ফলে চাল, ডাল, তেলের দাম না কমলেও খুব সস্তা হয়ে গেছে মানুষের জীবনের মূল্য। নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছে দেশের প্রতিটি মানুষ। এক অজানা ভয়ে সবাই ভীত। সবার মনে একটাই প্রশ্ন তাহলে কি এরপরের টার্গেট আমি! এমন ভাবনায় সকলের রক্ত হীম হচ্ছে প্রতিনিয়ত। স্বাধীন দেশ, দেশের শাসন ব্যবস্থার নামও গনতন্ত্র তবু কেন এ জাতি এত অসহায়।

রাজনীতিরও একটা সংস্কৃতি আছে, আছে নিজস্ব সৌন্দর্য। কিন্তু বাংলাদেশে চলমান ঘটনাগুলো কেমন সংস্কৃতি? রক্তপাত তো কোন সংস্কৃতি নয়। রক্তপাত তো কোন সৌন্দর্য নয়, তবে কেন চারিদিকে আজ রক্তের হুলি খেলা। এই জাতি তো দেশটাকে শত্রু মুক্ত করতে সেই ১৯৭১ সালে রক্তের হলি খেলা দেখিয়েছিলে। বুকের তাজা রক্ত দিয়ে দেশটাকে স্বাধীন করেছিল। কিন্ত আজ কেন স্বাধীন দেশের রাজপথে রক্তের আলপনা আঁকা?

শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্লগারসহ সাধারণ জনগনের রক্তে রাঙানো রাজপথ। চাপাতি হিংস্র কুপে ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে শতশত মানুষের প্রাণ। কিন্তু বিচারহীন এই দেশে মেলে না সুবিচার। এমন বিচারহীনতার কারণেই বেড়ে চলেছে সমাজে হত্যা, গুম, ধর্ষণের মত ঘটনাগুলো।

আমাদের বিচার ব্যবস্থা মেরুদন্ডহীন। বর্তমানে ক্ষমতার কাছে বিচার বিভাগ বড্ড অসহায় হয়ে পড়েছে। এমন মেরুদন্ডহীন বিচার ব্যবস্থার কারণে কত মানুষকে লাশ হতে হচ্ছে প্রতিদিন তার হিসাব হয়ত আমাদের আইন শৃঙ্ক্ষলা বাহিনীর কাছে নেই, কিন্তু তাদের টার্গেটকৃত মানুষগুলোর মাঝে কতজন বেঁচে আছেন তার হিসাব হয়ত ঠিকই আছে। এরপর কাকে কুঁপাতে হবে তাও হয়ত ঠিক করে ফেলা হয়ে গেছে ইতিমধ্যে। হয়ত আমার নামটিও যুক্ত হয়ে গেছে টার্গেটের তালিকায়। এরপরের চাপাতির খুরাক হয়ত আমি-ই। বিচারহীনতাই এমন অপরাধ বৃদ্ধির কারণ। সুবিচার প্রতিষ্ঠা করেই দেখেন না অপরাধ কতটা কমে যায়।

সৈয়দ আলী আকবর প্যারিস ফ্রান্স
নির্বাহী সম্পাদক পারিস বার্তা