ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 


আজকের (২৩/২/২০১১) আমারদেশ পত্রিকায় এই খবরটা দেখে খুব অবাক না হলেও এই রিপোর্টারের কর্তব্য পালনের কায়দাটা দেখে বেশ অবাক হলাম। খবরের সারমর্মে যা বুঝা গেলো তাতে মনে হচ্ছে লোকটি মানসিক প্রতিবন্ধী এবং একজন যক্ষা রোগী। রিপোর্টার (নেসার উদ্দিন আহাম্মদ) হয়তো তার পেশাগত কারনে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছেন। ভেবে কষ্ট লাগে যে একজন পেশাদার সাংবাদিক হিসেবে হয়তো তিনি রিপোর্ট টা লিখেই তার দায় সেরেছেন, কিন্তু একজন বিবেকবান এবং সচেতন মানুষ হিসেবে কি তার আর কোনো দায়িত্ব ছিলোনা?

এই প্রবাস থেকে যতদুর জানি দেশে নাকি যক্ষার চিকিৎসা ফ্রি করা হয় এবং এই চিকিৎসা নেয়ার জন্য জনগনকে উদ্বুদ্ধও করা হয়। নেসার সাহেব কি পারতেন না তাকে একটু হাসপাতালে পৌঁছে দিতে?
আমাদের পুলিশ মহোদয়ের কথা আর কি বলবো; ভাবতে অবাক লাগে একজন মানসিক রোগী পুলিশের পোশাক পড়ে রাস্তায় পড়ে আছে তাদের কোন মাথাব্যাথা নেই।
শার্টটা নাকি রমনার সামনে পেয়েছে, ধরে নিলাম মানসিক রোগীটার কথার কোন মূল্য নেই কিন্তু ঐ পোশাকটি রমনার সামনে না হলেও কোথাও না কোথাও তো তিনি পেয়েছেন? তাহলে আমাদের পুলিশ সাহেবদের ব্যাচ ওয়ালা ইউনিফর্ম টি কোথা থেকে এলো? এগুলো কি এতই মূল্যহীন?

হায়রে আমার সোনার বাংলা!!