ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 
face off

 

একটি দেশের উন্নয়নে প্রধান ভূমিকা রাখে শিক্ষা। শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়। আর formal education এর fundamental রূপ হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা। আমাদের দেশেও প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অর্থাৎ ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে সকলকে। নানা উদ্যোগের মাধ্যমে তা বাস্তবায়নের চেষ্টাও করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে সফলতাও কম নয়। কিন্তু …………. সমস্যা! সমস্যা!! সমস্যা!!!

আমি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার কথা বলছি। অনেকেই এর বিপক্ষে মত দিয়েছেন। অনেকেই বলেছেন আমার শৈশব ও কৈশোর ফিরিয়ে দিন। বিষয়টিকে আমি একটু ভিন্নভাবে উপস্থাপন করতে চাই। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার পক্ষে আমার সুদৃঢ় অবস্থান। কিন্তু পরীক্ষা পদ্ধতিতে আপত্তি।

আমি মনে করি, অবশ্যই একজন শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবনের এক পর্ব শেষ করে যোগ্য হিসেবেই অন্য পর্বে পদার্পণ করা উচিত। এক্ষেত্রে প্রাথমিক পর্ব শেষ হওয়ার পর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। তবে তা হওয়া উচিত গঠনমূলক। যে মূল্যায়ন ব্যবস্থায় থাকবে না সার্টিফিকেটে ভালো গ্রেড নিয়ে তোলপাড়।

আমার মতে, সকল বিষয়ের উপর একটি ১০০ নম্বরের পরীক্ষা গ্রহণ করা উচিত যেখানে ফলাফল প্রকাশ করা যেতে পারে উত্তীর্ণ / অনুত্তীর্ণ। এক্ষেত্রে অভিভাবকদের উপর বাড়তি প্রেসার থাকবে না। থাকবে না শিক্ষার্থীদের ওপরও। ফলে প্রশ্ন ফাঁস / পরীক্ষার হলে শিক্ষকদের দুর্নীতি, কোচিংএর নামে শিক্ষকদের ব্যবসা, অভিভাবকের হতাশা, সর্বান্তরে জাতীয় দুর্যোগ। অর্থাৎ জাতিকে মেরুদন্ডহীন করার প্রয়াস থাকবে না।

বর্তমানে পিএসসি পরীক্ষার যে অবস্থা তাতে পিএসসি পরীক্ষা প্রাণী হলে নিশ্চয়ই বলত, ‘আমাকে শিরোচ্ছেদ কর’