ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

প্রচলিত ধারার রাজনীতি এর মাধ্যমে দেশে ভালো কিছু হওয়া অসম্ভব। রাজনীতিবিদরা দলের কাছে বন্দি। তাঁদের কোন স্বাধীনতা থাকে না। এমনকি তাঁদের বাক স্বাধীনতাও ক্ষুণ্ণ হয় যখন তাঁরা কোন দলের আস্রয়ে রাজনীতি করে। দল বিহীন রাজনীতি করা অসম্ভব আবার দলীয় রাজনীতি করলে দিতে হয় আপন সত্তার বিসর্জন। দলের সিদ্ধান্ত সব ঠিক, নেতা তোষণ হয় নীতি , দলকে আর্থিক ভাবে যে যত দিতে পারবে দলে তার দাম তত বেশী। নমিনেশন থেকে মন্ত্রিত্ত পাওয়া সর্বত্রই চলে অর্থের খেলা। তাহলে ভালো মানুষ কিভাবে রাজনীতি করবে? সত্তার বিসর্জন দিতে হলে সৎ ও ন্যায়পরায়ণ লোক কিভাবে রাজনীতিতে আসবে? সংসদে দলের বিরুদ্ধে ভোট দিলে সদস্য পদ হারাতে হয় কে এই রিস্ক নিবে! তাই ভিন্ন মত সব সময় দমিত হয় দলের মধ্যে। এই ধারার রাজনীতির মাধ্যমে আমরা সব সৎ ও যোগ্য লোকদের জন্য রাজনীতির দরজা বন্ধ করে দিয়েছি। আসলে রাজনীতি কোন পেশা হতে পারে না। রাজনীতিবিদ বলে কোন বিদ থাকতে পারেনা। চিকিথসাবিদ, কৃষিবিদ, শিক্ষাবিদ ইত্যাদি হতে পারে কিন্তু রাজনীতিবিদ বলে কোন বিদ থাকা ঠিক না। রাজনীতি হবে জীবনের একটা অনুভুতি মানুষের কল্যাণের একটা অভিপ্রায় এটা টাকা কামাই বা সংসার চালানোর কোন ধান্দা হতে পারে না। যদি এমনটি হয় তবেই রাজনীতি হবে দুর্নীতির আখড়া, হবে পরিবার তন্ত্রের অবাধ চর্চা। পীররা যেমন আজকাল খেলাফত দেন নিজের পরিবারের লোকদের যাতে ব্যবসা টিকে থাকে তদ্রুপ রাজনীতিতে যারা সম্পৃক্ত তারাও নিজের পরিবারের লোকদের তাঁদের রাজনৈতিক উত্তরাধিকার হিসেবে মনোনীত করছেন। এটা এই জন্যই যে এটা একটা দারুন ব্যবসা। রাজনীতি হওয়ার কথা ছিল অকাতরে মানুষের জন্য কাজ করার ক্ষেত্র কিন্তু হয়েছে আখের গুছানোর সর্বোত্তম পন্থা। সবারি একটা ধান্দা কি পেলাম রাজনীতি করে। এই ধারা থেকে বের হতে হলে অন্য ধারার রাজনীতি আসতে হবে। গণতন্ত্রের নুতন ফরমুলা দিতে হবে। আমার মাথায় একটা ফর্মুলা কাজ করছে জানিনা ওঁটা কাজ করবে কিনা। কিন্তু আমার মনে হয় এই ফর্মুলা প্রয়োগ করলে অনেক কিছুই ঠিক করা যাবে। সেটা হল নির্দলীয় গনতন্ত্র। মানে সবাই ব্যক্তিগত রাজনীতি করবেন কোন দল না দলেরও না। দলীয় রাজনীতি থেকে বের হয়ে ব্যক্তিগত অনুভুতি থেকে রাজনীতি করবেন। তাহলে ভালো মানুষ রাজনীতির সুযোগ পাবে আর টাকার খেলা বন্ধ হবে। পরিবার তন্ত্রের অবসান হবে। বাক স্বাধীনতা সবাই ফিরে পাবে। এ বিষয়ে বিষদ আলোচনা হতে পারে।